Amardesh
আজঃঢাকা, শনিবার ১৮ মে ২০১৩, ২০১৩, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২০, ৭ রজব ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২.০০টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 
  • সাহিত্য-সাময়িকী
    যদি বলা হয়, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর আজকাল আর উচ্চ মানসিকতার জন্য নিচের দিকে তাকাতে পারছেন না; কেমন শোনাবে? অভিযোগটা আমার নয়। মৌসুমী ভৌমিক এক সাক্ষাত্কারে বলেছিলেন, মধ্যবিত্ত সমাজ রবীন্দ্রনাথচর্চায় বদ্ধ। এটা প্রকারান্তরে অভিযোগ! তবে নিতান্তই কোনো অভিযোগ নয়, বরং চোখে আঙুল দিয়ে সত্যকেই উন্মোচন করলেন। এ...
    আ হ মে দ তে পা ন্ত র
    এম. ওবায়দুল্লাহ বললে কেউ চিনবেন না তাঁকে। ‘আসকার ইবনে শাইখ’ (১৯২৫-২০০৯) নামটি এমন — অনেকদিন — প্রায় লুপ্তই হয়ে গেছে — যদিও, আমি দেখলাম কোনো কোনো তরুণ লেখক তাঁকে ঠিকই চেনেন। আবার নাট্যকার আসকার ইবনে শাইখকে যাঁরা চেনেন, তাঁরা জানেন না তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিসংখ্যান বিভাগে সুদীর্ঘকাল অধ্যাপনা...
    আ ব দু ল মা ন্না ন সৈ য় দ
    ১৯৪৭ সালে আমি পুরোপুরি দিশাহারা। পড়শি গ্রামের ঠাকুর বাড়ির আনন্দ-আসর তখন ভেঙে গেছে। পশ্চিমবঙ্গের বিখ্যাত যাত্রা পার্টি নট্ট কোম্পানির খ্যাতনামা অভিনেতা ফণী গাঙ্গুলী (বড় ফণী নামে খ্যাত) ও অন্যান্য কয়েকজনের সঙ্গে আমার তখন পরিচয় ঘটে। সেই সুবাদে স্থির হলো আমি নট্ট কোম্পানিতে যোগ দেব। সেই উদ্দেশে বাড়ি...
    আজ সারাদিন কোথাও যায়নি নীলু। এমনিতে ছুটির দিন, মা’র শরীরটাও ভালো যাচ্ছে না। নীলুরও কেন যেন মন খারাপ সকাল থেকে। টিভিতে দেশের গান চলছে। এই গানগুলো সবসময় শোনা হয় না। শুনলে কেমন একটা শক্তি টের পায় ভেতরে। এমন সময় মা’র কণ্ঠ শোনা গেল পাশের ঘরে— ‘নীলু, নীলু...।’ ‘যাই মা।’ নীলু তড়িঘড়ি ছুটে এলো মায়ের...
    জা ফ র তা লু ক দা র
    ছোটবেলা থেকে শ্লেট-পেন্সিল দিয়ে যখন আঁকতাম, তখন আমার আঁকার হাত দেখে সবাই উত্সাহ দিতে লাগল। সবাই বলা শুরু করল, আমি এই লাইনে থাকলে ভবিষ্যতে অনেক দক্ষ চিত্রশিল্পী হতে পারব। তাদের উত্সাহ এবং আগ্রহ থেকেই ছবি আঁকা শুরু করি। শৈশবে বিদ্যালয়ে যখন প্রতিযোগিতা হতো, তখন বিভিন্ন প্রতিযোগিতায় আমি প্রথম হতাম।...
    অনুবাদও কবিতা হতে পারে, সে কথা হয়তো অনেকে মানবেন না। তবুও কোনো কোনো কাব্যরসিক একে স্বীকার করে নিয়েছেন। কেন? উত্তর একটাই। অনুবাদও প্রকৃত বাংলা কবিতা হয়ে উঠতে পারে—শব্দে-ছন্দে, রহস্যে-রোমাঞ্চে, ভাষার ভঙ্গিতে ও সঙ্গীতে। বাংলা কাব্য যাদের শিল্পসুষম জাদুস্পর্শের হাত ধরে অনুবাদও মৌলিক কবিতা হয়ে উঠেছে,...
    বৃষ্টি, বৃষ্টি এলে গাছ ভেজে বৃষ্টি এলে মাঠ ভেজে অরণ্যের মাথার ওপরে বৃষ্টি নাচে ভেজায় নিস্তব্ধতা বৃষ্টি এলে গাছগুলো কথা বলে চুপি চুপি রাস্তাগুলো ভেজে ঘষে-মাজে উদোম করে শরীর বৃষ্টির শব্দ মাঠ পেরোয় দিগন্ত ভাঙে, যায় যতোদূর অতীতের সবকিছু ভিজতে থাকে একান্ত নীরবে। বৃষ্টি, বৃষ্টি এলে তুমি এসে...
    ম তি ন বৈ রা গী
    নদীর কাছে বলছি যেচে ঢেউ দেবে গো ঢেউ’র তালে তাহার খোঁজে নাও ভাসাবো ভয় করি না জোয়ার-ভাটা ঝড়ো হাওয়া আসে আসুক রুখেই দেবো দৈত্য ছায়া। ঈশান কোণে বৈরী বাতাস পথ দেখাবে মেঘের দেশে তাহার বাড়ি পৌঁছতে হবে আছে কি কেউ সঙ্গী হবে আমার সাথে ঘামের দামে ঋণ মিটাবো বুকটা পেতে তাহার রূপে ঈর্ষাকাতর বিজলি...
    জা ফ রু ল আ হ সা ন
    শিক্ষক নিয়েছে ঠিকাদারি— গড়বে সে রাস্তাঘাট, পাকা ঘর-বাড়ি। সংসদে গেছে চাক্কু জালু; কুমারের মেয়েগুলো গার্মেন্টসে গেছে। কোথায় যে গেছে চলে সাধন তাঁতিরা— জানি না, জানি না... বিক্রি হচ্ছে অলঙ্কার, বিক্রি হচ্ছে ভিটা— প্রতিদিন কতজন বিমানে যে চড়ে! কেউবা গিয়েছে পুবে, কেউবা পশ্চিমে— আমার মরমি...
    চৌ ধু রী ফে র দৌ স
    অন্তর ব্যাধিতে কাটে তার নিশুতি রাত খণ্ড খণ্ড স্নেহপ্রেম কোমল সোহাগী হাত অন্তহীন প্রেম চাই—তবু হোঁচট খায় এ হৃদয় হৃদয় ভাঙে। ভেঙে ভেঙে সেলাই করা এ নিলয়। নির্ঘুম রাত যায় কেবলই অচল দৃষ্টি ভেতরে আগুন তার। এ কার সৃষ্টি? নিয়মহীন অস্তিত্বে কোমল স্পর্শ পড়ে কার এ যেন ব্যাধি নয়, নিত্যদিনের...
    শা ও ন আ স গ র
    তোমার কাছে প্রেমিক নই—ভিক্ষুকই ছিলাম মগজে আকালের কামড় তবু হেঁটে এসেছি বহুদূর জল কই? নদী কই? বুকের ভেতর জোয়ান কষ্ট কোথাও নেই ছায়াবৃক্ষ। তোমার কাছে প্রেমিক নই—ভিক্ষুকই ছিলাম মগজে আকালের কামড় তবু তোমার দুয়ারে খুদ কই? কুঁড়া কই? ভালোবাসাহীন করুণাহীন তুমি তো কখনও আমাকে ভালোবাসনি!
    খা লে দ রা হী