Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৫ আগস্ট ২০১৩, ৩১ শ্রাবণ ১৪২০, ৭ সাওয়াল ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

অনন্য উচ্চতায় ইসিনবায়েভা

স্পোর্টস ডেস্ক
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
বিশ্ব রেকর্ড গড়তে না পারলে কী হবে, বিশ্ব অ্যাথলেটিক্স চ্যাম্পিয়নশিপের চমকপ্রদ ফাইনালে পোলভোল্টের সোনাটি ঠিকই জিতে নিয়েছেন ইয়েলেনা ইসিনবায়েভা। বিশ্ব অ্যাথলেটিক্সে এ ইভেন্টে তৃতীয় সোনা জয়ের পথে ৪.৮৯ মিটার পেরিয়েছেন ‘পোলভোল্টের রানী’। সোনা নিশ্চিত হওয়ার পর ৫.০৭ মিটার টপকে চেষ্টা করেছিলেন নিজের বিশ্বরেকর্ড ভাঙতে, তা আর পেরে উঠেননি। তাতে কী, স্বপ্নের মতো পোলভোল্টে আবার সোনা জিতে স্বদেশের মানুষকে আনন্দে ভাসিয়েছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন জেনিফার সুর জিতেছেন রৌপ্য। ব্রোঞ্জ কিউবার ইয়ারিসলি সিলভার। মঙ্গলবার রাতে মস্কোর লুঝনিকি স্টেডিয়ামে ইসিনবায়েভার সাফল্য কামনা করতে এসেছিলেন হাজার হাজার দর্শক। তাদের স্মরণীয় একটি রাতই উপহার দিয়েছেন ২৮ বার বিশ্বরেকর্ড ভাঙা এই অ্যাথলিট। ২০০৮ বেইজিং অলিম্পিকের পর বিশ্ব আসরে সোনাবঞ্চিত ছিলেন ইসিনবায়েভা। ২০০৯ বার্লিন এবং ২০১১ দেগু বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ থেকে ফিরেছেন শূন্য হাতে। গত লন্ডন অলিম্পিকে ব্রোঞ্জ নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তাকে। মস্কোতে সোনা জেতার পর তার অর্জনে এখন আছে দুটি অলিম্পিক সোনার সঙ্গে তিনটি বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ। মেয়েদের পোলভোল্টে ইসিনবায়েভাও নিজেকে নিয়ে গেছেন বুবকার পর্যায়ে। সোনা জেতার পর খুশিতে কয়েকবার উল্টো ডিগবাজিও দেন ইসিনবায়েভা। পরে স্টেডিয়াম চক্কর দিয়ে দশর্কদের ধন্যবাদ জানানোর পর তিনি বলেন, ‘আমি এখন খুশি। আমি পোলভোল্টের রানী, মুকুটটা আমারই।’ এই বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপের পরই অবসর নেয়ার কথা বলেছিলেন ৩১ বছর বয়সী ইসিনবায়েভা। তবে এই আসরে নিজের তৃতীয় শিরোপা জয় করতে পারলে এখনই অবসর না নেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন তিনি। ১৯৮০ এবং ১৯৯০ দশকে পোলভোল্টে যেমনি আলোড়ন সৃষ্টি করেছিলেন ইউক্রেনের সার্জেই বুবকা, ঠিক একইভাবে বর্তমান সময়ে আলোড়ন সৃষ্টিকারী দু’বারের অলিম্পিক চ্যাম্পিয়ন ৩১ বছর বয়সী ইসিনবায়েভা। গত জুলাই মাসে বলেছিলেন, মস্কোতে নিজ মাঠে বিশ্বকাপের পরই অবসরে যাবেন তিনি। তবে ফাইনাল পর্বে উন্নীত হয়ে জানালেন, তিনি এখনই মনস্থির করতে পারছেন না। তিনি বলেন, ‘যেহেতু আমি মিথুন রাশির জাতিকা, তাই আমি আমার ক্যারিয়ার শেষ করার বিষয়ে ভাবছি না। মিথুন রাশির লোকেরা খুব সহজেই তাদের সিদ্ধান্ত পরিবর্তন করতে পারে।’ এদিকে, মঙ্গলবার পুরুষদের ৪০০ মিটার দৌড়ে সোনা জিতেছেন যুক্তরাষ্ট্রের লশন মেরিট। তার সময় লেগেছে ৪৩.৭৪ সেকেন্ড। রুপা মেরিটের স্বদেশি টনি ম্যাককুয়ের। ব্রোঞ্জ পেয়েছেন ডোমিনিকান প্রজাতন্ত্রের লুগুয়েলিন সান্তোস। গত আসরে সোনা জেতা অলিম্পিক চ্যম্পিয়ন গ্রেনাডার কিরানি জেমস হয়েছেস সপ্তম। ২০০৮ সালে বেইজিং অলিম্পিক আর ২০০৯ সালের বিশ্ব চ্যম্পিয়নশিপে সোনা জেতা লশন মেরিটের সঙ্গে তার প্রত্যাশিত প্রতিদ্বন্দ্বিতা তাই দেখা যায়নি। পুরুষদের ৮০০ মিটারে প্রথম ইথিওপিয়ান হিসেবে বিশ্ব অ্যাথলেটিক্সে সোনা জিতে ইতিহাস গড়েছেন মোহাম্মদ আমান। এই ইভেন্টে রুপা ও ব্রোঞ্জ যথাক্রমে যুক্তরাষ্ট্রের নিক সাইমন্ডস ও জিবুতির আয়ানলেহ সুলেইমানের। পুরুষদের ডিসকাস থ্রোতে সোনা জিতেছেন জার্মানির রবার্ট হার্টিং। ২০১২ অলিম্পিকে সোনা জেতা হার্টিংয়ের এটি তৃতীয় বিশ্ব চ্যাম্পিয়নশিপ সোনা। মহিলাদের ৩,০০০ মিটার স্টিপল চেজে কেনিয়ার মিলকাহ চেমোস চেইওয়া সোনা জিতেছেন।