Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ১৫ আগস্ট ২০১৩, ৩১ শ্রাবণ ১৪২০, ৭ সাওয়াল ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

ভারতে ডুবোজাহাজে বিস্ফোরণ : আটকাপড়া নাবিকরা মারা গেছেন : প্রতিরক্ষামন্ত্রী

এনডিটিভি, রয়টার্স
পরের সংবাদ»
মুম্বাই বন্দরে ভারতীয় নৌবাহিনীর সিন্ধুরক্ষক নামের ডুবো জাহাজের বিস্ফোরণে আটকাপড়া নাবিকরা মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন দেশটির প্রতিরক্ষামন্ত্রী একে অ্যান্টনি। অ্যান্টনি বলেন, রাশিয়ার তৈরি আইএনএস সিন্ধুরক্ষক ডুবো জাহাজের ভেতরে থাকা নাবিকেরা মারা গেছেন। তবে ঠিক কতজন মারা গেছেন বা ক্ষয়ক্ষতি সম্পর্কে বিস্তারিত কোনো তথ্য তিনি দেননি।
এর আগে বিস্ফোরণের পর ডিজেল-বিদ্যুতে পরিচালিত ভারতের সবচেয়ে আধুনিক ডুবো জাহাজটিতে আগুন ধরে গেলে ১৮ নাবিক আটকা পড়ে বলে জানানো হয়। নৌবাহিনীর মুখপাত্র পিভিএস সতিশ জানান, ‘ভেতরে বেশ কয়েকজন আটকা পড়েছেন। আমরা তাদের উদ্ধারের চেষ্টা চালাচ্ছি। আমাদের ধারণা আটকা পড়া নাবিকের সংখ্যা ১৮।’
তিনি আরও বলেন, ‘তাদের উদ্ধার করার আগ পর্যন্ত আমরা তত্পরতা চালিয়ে যাব।’
আইএনএস সিন্ধুরক্ষক নামের ওই ডুবোজাহাজের ভেতরের বিস্ফোরণ সম্ভবত দুর্ঘটনা বলে মন্তব্য করেছেন সতিশ।
গতকাল ভোরে উচ্চনিরাপত্তা বেষ্টিত মুম্বাইয়ের সেনা পোতাশ্রয়ে এই ঘটনা ঘটেছে।
ডুবোজাহাজটির ভেতরে থাকা কারও সঙ্গেই এখনও পর্যন্ত যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি। এর ফলে এখনও নিশ্চিত হওয়া সম্ভব হয়নি, দুর্ঘটনার সময় কোনো নাবিক জীবন বাঁচাতে পানিতে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল কিনা। তবে আহত বেশ কয়েকজন সামরিক সদস্যকে মুম্বাইয়ের নেভি হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তবে তারা আইএনএস সিন্ধুরক্ষক ডুবোজাহাজের কেউ কিনা তা জানা যায়নি।
নৌবাহিনীর ডুবুরিরা উদ্ধার তত্পরতা শুরু করলেও এখনও ডুবোজাহাজটির অভ্যন্তরে প্রবেশ করতে সক্ষম হয়নি।
মধ্যরাতের একটু পরে আইএনএস সিন্ধুরক্ষককে বিস্ফোরণ ঘটে। অনেক দূর থেকে প্রচণ্ড বিস্ফোরণের শব্দ শোনা গেছে বলে জানিয়েছেন প্রত্যক্ষদর্শীরা।
অগ্নিকাণ্ডের ফলে দক্ষিণ মুম্বাইয়ের রাতের আকাশ উজ্জ্বল হয়ে উঠেছিল। আইএনএস সিন্ধুরক্ষকের পাশে নোঙর করে রাখা অন্য একটি জাহাজকে এ সময় নিরাপদে সরিয়ে নেয়া সম্ভব হয়েছে।
নৌবন্দর এবং মুম্বাই দমকল বাহিনীর ১৬টি দমকলের যৌথ প্রচেষ্টায় রাত ৩টায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়।
রাশিয়ার তৈরি ১৬ বছরের পুরনো কিলো শ্রেণীর ডুবোজাহাজটির সামান্য অংশ এখন পানির ওপর রয়েছে। তিনমাস আগে এ ডুবোজাহাজকে উন্নয়নের জন্য ভারত ৮ কোটি ডলার ব্যয় করেছে এবং উন্নয়নের কাজটি করা হয়েছে রাশিয়ায়।
বিস্ফোরণ এবং আগুনে আইএনএস সিন্ধুরক্ষক এবং বন্দরের ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ এখনও নির্ণয় করা যায়নি।
ভারতীয় নৌবাহিনীর মুখপাত্র নরেন্দ্র ভিসপুত বলেছেন, দুর্ঘটনার কারণ নির্ধারণের জন্য একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
নৌবাহিনীর বিবৃতিতে জানা যায়, ডুবোজাহাজটির মূল্য ৪৮০ কোটি রুপি। মাত্র তিনমাস আগে রাশিয়া থেকে কেনা হয়েছে।
বর্তমানে ভারতের ২০টি ডুবোজাহাজ প্রয়োজন হলেও তাদের রয়েছে ১৪টি ডুবোজাহাজ।
ইন্টারনেটের সামাজিক যোগাযোগ সাইটগুলোতে ওই বিস্ফোরণের যেসব ছবি দেয়া হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে নৌবাহিনীর পোতাশ্রয়ে যে অংশে ডিজেল-বৈদ্যুতিক ডুবোজাহাজগুলোকে নোঙর করে রাখা হয় সেখানে বিশাল আগুনের গোলক আকাশের দিকে ছড়িয়ে পড়েছে।
আইএনএস সিন্ধুরক্ষককে ২০১২ সালে রাশিয়া থেকে আরও উন্নত করে আনা হয়েছে বলে রাশিয়ার সংবাদমাধ্যম সূত্রে জানা গেছে।