Amardesh
আজঃঢাকা, বুধবার ১৭ জুলাই ২০১৩, ২ শ্রাবণ ১৪২০, ০৭ রমজান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

গোলাম আযমের রায় : সরকারকে আপিল করার অনুরোধ মেননের

সংসদ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনালে জামায়াতের সাবেক আমির অধ্যাপক গোলাম আযমকে দোষী সাব্যস্ত করে ৯০ বছরের কারাদণ্ডের বিরুদ্ধে আপিল করার জন্য সরকারের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন মহাজোটের শরিক ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন। গতকাল পয়েন্ট অব অর্ডারে রায়ে গোলাম আযমকে মৃত্যুদণ্ড না দেয়ায় হতাশা ব্যক্ত করে তিনি বলেন, অপরাধ প্রমাণিত হওয়ার পরও সাজা কমিয়ে ৯০ বছর কারাদণ্ড দেয়ায় দেশের মানুষের কাছে তা নিয়ে প্রশ্ন উঠছে। তিনি বলেন, সরকার শুরু থেকে যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করবে বলে ঘোষণা দিয়ে এসেছে। এ বিচারে সরকার নাকি সন্তুষ্ট। সবকিছু দেখে মনে হচ্ছে সরকার যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের শেষ দিকে এসে হোঁচট খেয়ে গেল। তিনি বলেন, সরকার অবিলম্বে তার বিরুদ্ধে সর্বোচ্চ শাস্তির জন্য আপিল করবে—অন্তত এটুকু নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, একাত্তর সালে যার পরামর্শে অনেক নারী, শিশু ও বৃদ্ধকে হত্যা করা হয়েছিল। যুদ্ধাপরাধ, মানবতাবিরোধী অপরাধ হয়েছিল তাকে মানবতা দেখালাম। বয়স বিবেচনা করে তার সাজা কমিয়ে এনে ৯০ বছরের কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে—এমন কোনো নজির রয়েছে কিনা জানা নেই।
বেসরকারি বিল পাসের অনুরোধ
এদিকে পয়েন্ট অব অর্ডারে জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক চুন্নু তার আনা তিনটি বেসরকারি বিল পাসের আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, এ পর্যন্ত আমি চারটি বেসরকারি বিল এ সংসদে উত্থাপন করেছি। এগুলো হচ্ছে পিতা-মাতার ভরণপোষণ বিল, সুপ্রিম জুডিশিয়াল কাউন্সিল ও হরতাল বন্ধে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিল।
মুজিবুল হক বলেন, এর মধ্যে পিতা-মাতার ভরণপোষণ বিলটি বাছাই কমিটি সর্বসম্মতভাবে সিদ্ধান্ত দিয়ে পাসের জন্য সংসদে পাঠিয়েছে। প্রায় ২ বছর হয়ে গেল এখন পর্যন্ত বিলটি পাসের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। তিনি বলেন, এদেশে কোটি কোটি বৃদ্ধ পিতা-মাতা রয়েছেন যাদের সন্তানরা তাদের ভরণপোষণ দেন না। মূলত বৃদ্ধ পিতা-মাতার স্বার্থে বিলটি আনা হয়েছে। আমি অনুরোধ করব সরকারের আর মাত্র তিন মাস সময় আছে। এ সময়ের মধ্যে বিলটি পাস করার ব্যবস্থা করা হবে।
এরপর তিনি বলেন, হরতাল বন্ধে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিল আনা হয়েছে। দেশের ১৬ কোটি মানুষ হরতাল চায় না। হরতাল যেন শুধু জাতীয় স্বার্থে ব্যবহার করা হয় সেজন্য বিলের ধারায় উল্লেখ করা হয়েছে। বিলটি পাস হলে ইচ্ছা করলে বা কোনো কারণ ছাড়াই যে কেউ হরতাল ডাকতে পারবেন না। বেসরকারি বিল পাসের বিষয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি।