Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ০১ জুলাই ২০১৩, ১৭ আষাঢ় ১৪২০, ২১ শাবান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

কাউখালী-ভিটাবাড়িয়া-ভাণ্ডারিয়া সড়কে ১২টি ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ

কাউখালী (পিরোজপুর) প্রতিনিধি
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
পিরোজপুর সড়ক ও জনপথ বিভাগের অধীনে কাউখালী-ভিটাবাড়িয়া-ভাণ্ডারিয়া সড়কের ১৫টি ব্রিজের মধ্যে ১২টিই ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। এর মধ্যে দুটি ব্রিজের টেন্ডার হলেও কাজ চলছে ঢিলেঢালা গতিতে। ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ খানাখন্দে ভরা ওই সড়কের ব্রিজগুলো র্দীঘদিন ধরে নাজুক অবস্থায় থাকলেও সংস্কার বা পুনর্নির্মাণের উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের।
জেলার স্বরূপকাঠি ও কাউখালী উপজেলার সঙ্গে জেলা সদরে যাতায়াতের প্রধান সড়ক স্বরূপকাঠি-কাউখালী-নৈকাঠি-পিরোজপুর সড়ক। দূরত্ব বেশি হওয়ায় দুই উপজেলার মানুষ ভাণ্ডারিয়া ও পিরোজপুর যাতায়াতের জন্য কাউখালী-শিয়ালকাঠি-ভিটাবাড়িয়া সড়কে বেশি চলাচল করে। ১৯৯৭ সালে ১২ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়কটি উদ্বোধন করা হয়। ওই সড়কে ১৯৯৮ সাল থেকে যানবাহন চলাচল শুরু হয়। বেইলি ব্রিজসহ সড়কটি কার্পেটিং করানো হয়। কিন্তু এর পর কোনো সরকার সড়ক সংস্কার না করায় সড়কটি ভেঙে গেছে। এদিকে পুরনো ব্রিজগুলো পুনর্নির্মাণের কোনো ব্যবস্থা না করায় সব ব্রিজের স্লাব ও রেলিং ভেঙে পড়েছে। গত বছর কাউখালী থেকে পারসাতুরিয়া পর্যন্ত চার কিলোমিটার সড়কের কাজ করানো হলেও মাঝখানে এক কিলোমিটার সড়কের সংস্কার না করায় ঝুঁকি নিয়ে মানুষ ও যানবাহন চলাচল করছে। অত্যন্ত ঝুঁকিপূর্ণ ব্রিজগুলোর ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেয়া হয়নি। ওই সড়কের ১২টি ব্রিজের মধ্যে চিরাপাড়া আদম আলী, বিশ্বাসবাড়ির সামনে, শিয়ালকাঠি টাওয়াররে কাছে ফরাজীবাড়ি, সামছু মিয়ার বাড়ির সামনে ব্রিজ হলো সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। এছাড়া বেলতলা, তালুকদারহাট, মিলন সংঘ ব্রিজ, সেনেরহাটসংলগ্ন ব্রিজ, ভিটাবাড়িয়া মোড়ের ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় রয়েছে। ওইসব ব্রিজের ওপর দিয়ে প্রতিদিন শত শত মাঝারি ও হালকা ধরনের যানবাহন চলাচল করছে। নছিমন ও করিমন নামের যানবাহনগুলো ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি যাত্রী নিয়ে ওই সড়কে চলাচল করে। এ অবস্থায় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।