Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ০১ জুলাই ২০১৩, ১৭ আষাঢ় ১৪২০, ২১ শাবান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

প্রচারণায় প্রার্থীদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক

আড়াইহাজার (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
নির্বাচন যতই ঘনিয়ে আসছে ততই মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণায় মুখর হয়ে উঠছে আড়াইহাজার ও গোপালদী পৌর এলাকা। প্রার্থীদের বৃষ্টি উপেক্ষা করে রিবামহীন প্রচারণায় উত্সবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে ২ পৌর নির্বাচনী এলাকায়। মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীদের আচরণবিধি লঙ্ঘনের হিড়িক পড়েছে। অথচ আচরণবিধি লঙ্ঘন রোধে কোনো ব্যবস্থা নিচ্ছে না নির্বাচন কমিশন।
জানা গেছে, আড়াইহাজার পৌর নির্বাচনে মোট এগারো জন মেয়র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে সাতজন আওয়ামী লীগের এবং একজন বিএনপির, আর বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থী তিনজন। এর মধ্যে একজন বিএনপি সমর্থিত প্রার্থীকে সমর্থন দিয়েছে দলটি। বাকি বিদ্রোহী প্রার্থী কবির ও সেলিম দল থেকে সমর্থন না পাওয়ায় ভোটাররা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে তাদের কাছ থেকে। বিএনপির প্রার্থী পারভিন আক্তার দলীয় সমর্থন পাওয়ায় খোশ মেজাজে রয়েছেন। এরই মধ্যে দলীয় নেতাকর্মীরা মাঠে নেমে পড়েছেন তার পক্ষে। গতকাল তার পক্ষে প্রচারে নামেন বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তৈমূর আলম খন্দকার, বিএনপির শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খাইরুল কবির খোকন, সাবেক এমপি আতাউর রহমান খান আঙ্গুর, বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য বদরুজ্জামান খান খসরু, যুবদলের কেন্দ্রীয় নেতা এএফএম ইকবাল, বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন অনু, শরিফুল ইসলাম, মাসুদ পারভেজ, সাবেক চেয়ারম্যান শহিদুল্লাহ মিয়া প্রমুখ। এর আগে তারা গোপালদী পৌর মেয়র প্রার্থী আবুল বাশার কাশুর পক্ষে গোপালদী বাজারে গণসংযোগ করেন। আড়াইহাজার পৌর সভায় আওয়ামী লীগের ৭ জন মেয়র পদে নির্বাচন করছেন। এরা হলেন, আলহাজ সুন্দর আলী মিয়া, কাজী সুজন ইকবাল, বিল্লাল হোসেন, মেহের আলী, হারুনর রশিদ, মোজাম্মেল হক জুয়েল ও সাবেক চেয়ারম্যান হাবিবুর রহমান। সাতজন প্রার্থী থাকলেও এখন পর্যন্ত দলীয়ভাবে কোনো প্রার্থীকে সমর্থন দিতে পারেনি আওয়ামী লীগ। যার ফলে আওয়ামী লীগের ভোট বিভক্ত হয়ে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এ কারণে মনোবল ভেঙে পড়েছে ক্ষমতাসীন দলের নেতাকর্মীদের। আর এ সুবিধা নেবে বিএনপি। গোপালদী পৌরসভার মেয়র প্রার্থী বিএনপির সমর্থিত আবুল বাশার কাশু। আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী রফিকুল ইসলাম এবং আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আলহাজ এমএ হালিম শিকদার। সূত্র জানায়, গোপালদী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের দুজন এবং বিএনপির একজন প্রার্থী রয়েছেন। ফলে বাড়তি সুবিধা পাবে বিএনপি। আর এ পৌরসভায় ত্রিমুখী লড়াই হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। গতকাল আওয়ামী লীগ প্রার্থী রফিকুল ইসলামের পক্ষে টোকসাদীতে এক পথসভা অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এমপি নজরুল ইসলাম বাবু বলেন, বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর এলাকায় অনেক উন্নয়ন করেছি। উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে রফিকুল ইসলামের তালা প্রতীকে ভোট দেয়ার আহ্বান জানান তিনি। বিএনপির প্রার্থী আবুল বাশার গতকাল গোপালদী, দাইরাদী, টোকসাদী এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। তার পক্ষে মাঠে নামেন বিএনপির কেন্দ্রীয় শিক্ষাবিষয়ক সম্পাদক খাইরুল কবির খোকন।
তিনি সরকারের জুলুম নির্যাতন থেকে বাঁচতে বিএনপির প্রার্থীকে বিজয়ী করার আহ্বান জানান। আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী আলহাজ এমএ হালিম শিকদার তিনি রামচন্দ্রদী, উলুকান্দী, সদাসদী ও মোল্লার এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। তার পক্ষে মাঠে নামেন জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় যুগ্ম সম্পাদক আলমগীর শিকদার লোটন। পৌরসভাগুলোর কাউন্সিলর ও সংরক্ষিত কাউন্সিলর প্রার্থীরা তাদের নিজ নিজ এলাকায় ব্যাপক গণসংযোগ করেন। ২টি পৌরসভায় মেয়র প্রার্থীরা নির্বাচনের আচারণবিধি লঙ্ঘন করে চলছে।
এ বিষয়ে রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ফৌজিয়া খান জানান, গতকাল থেকে ভাম্যমাণ আদালতের অভিযান শুরু হয়েছে। কেউ আচরণবিধি লঙ্ঘন করে থাকলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।