Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ০১ জুলাই ২০১৩, ১৭ আষাঢ় ১৪২০, ২১ শাবান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস আজ : অনির্বাচিত ভিসির অনিয়মের প্রতিবাদে অনুষ্ঠান বর্জনের ঘোষণা সাদা দলের

বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
প্রাচ্যের অক্সফোর্ড খ্যাত দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় দিবস আজ। এ বছর দিবসটির প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও মুক্তবুদ্ধি চর্চায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। দিবসটি উদযাপন উপলক্ষে বর্ণাঢ্য কর্মসূচি গ্রহণ করেছে কর্তৃপক্ষ। গুরুত্বপূর্ণ ভবন ও ফটকে আলোকসজ্জাসহ পুরো ক্যাম্পাসকে সাজানো হয়েছে জমকালো সাজে। কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- সকাল ৯টায় প্রশাসনিক ভবন সংলগ্ন চত্বরে ছাত্র-শিক্ষক-কর্মকর্তা-কর্মচারীদের জমায়েত, জাতীয় পতাকা ও হলগুলোতে পতাকা উত্তোলন, কেক কাটা এবং শোভাযাত্রা। শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব কর্মসূচির উদ্বোধন করবেন।
এদিকে অনির্বাচিত ভিসি কর্তৃক বিশ্ববিদ্যালয়ের আদেশ লঙ্ঘনসহ নানা অনিয়মের প্রতিবাদ জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় দিবসের সব কর্মসূচি বর্জনের ঘোষণা দিয়েছে জাতীয়তাবাদী শিক্ষকদের সংগঠন সাদা দল। গতকাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ ঘোষণা দেন সাদা দলের আহ্বায়ক ও কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন-সাবেক প্রোভিসি অধ্যাপক ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়দার, বিজ্ঞান অনুষদের সাবেক ডিন ও সিনেট সদস্য অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম, ফামের্সি অনুষদের সাবেক ডিন অধ্যাপক ড. আবদুর রশিদ, শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক ড. মামুন আহমেদ, অধ্যাপক ড. ওবায়েদুল ইসলাম, অধ্যাপক ড. আবুল হাসনাত, অধ্যাপক ড. লুত্ফর রহমান, অধ্যাপক ড. লায়লা নুর ইসলাম, অধ্যাপক ড. তাহমিনা টপি, মো. ইসরাফিল রতন প্রমুখ। লিখিত বক্তব্যে সদরুল আমিন বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৭৩ সালের আদেশ আমাদের গৌরব ও অহঙ্কারের প্রতীক। গণতান্ত্রিক চেতনার প্রতীক ’৭৩ এর আদেশের সংরক্ষণ ও সমুন্নত রাখার ব্যাপারে আমরা অঙ্গীকারবদ্ধ। কিন্তু বর্তমান ভিসি ও প্রশাসন দায়িত্ব গ্রহণের পর থেকেই নানাভাবে ’৭৩ এর আদেশ লঙ্ঘন করে চলছেন।
সদরুল আমিন বলেন, আদেশের ১১(২) ধারায় সম্পূর্ণ সাময়িকভাবে ভিসি হিসেবে নিয়োগ পান অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিক। আদেশ অনুযায়ী দ্রুত সিনেটে ভিসি প্যানেল নির্বাচন দেয়ার কথা থাকলেও তিনি তা না করে ভিসি নিয়োগের গণতান্ত্রিক ঐতিহ্য ও ধারাকে কলুষিত করেছেন। অনির্বাচিত ভিসি নির্বাচিত না হয়েই এরই মধ্যে সাড়ে চার বছর অতিক্রম করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাসে এটি একটি নজিরবিহীন ঘটনা ও আদেশের চরম লঙ্ঘন। শুধু তাই নয়, আমরা উপর্যুপরি দাবি ও অনুরোধ সত্ত্বেও ভিসি তা করেননি।
সাদা দলের আহ্বায়ক আরও বলেন, সিনেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ নীতি নির্ধারণী সংস্থা। একে দেশের ‘দ্বিতীয় পার্লামেন্ট’ ও বলা হয়। কিন্তু বর্তমান ভিসি সেই সিনেটকেও অকার্যকর করে ফেলেছেন। সিনেটের ১০৫ জন সদস্য। যথাসময়ে নির্বাচন না দেয়ায় ৮৭টি পদই খালি রয়েছে।
এছাড়া, প্রতি বছর ৩০ জুনের মধ্যে সিনেট অধিবেশন আহ্বান করে বার্ষিক বাজেট অনুমোদন ’৭৩ এর আদেশের একটি বিধান। কিন্তু এ বছর ভিসি সিনেট অধিবেশন না ডেকে কেবল সিন্ডিকেটের মাধ্যমে বাজেট অনুমোদনের এক নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করলেন।
অধ্যাপক ড. সদরুল আমিন বলেন, চার বছর ধরে অনির্বাচিত হিসেবে ক্ষমতা আঁকড়ে রেখে ভিসি শুধু ’৭৩ এর আদেশ অবমাননা ও লঙ্ঘনই করেননি, ভিসি হিসেবে দায়িত্ব পালনের নৈতিক অধিকারও হারিয়েছেন। সিনেট অধিবেশন না ডেকে দলীয় সংখ্যাগরিষ্ঠতার জোরে সিন্ডিকেটে বাজেট অনুমোদনের মাধ্যমে তার স্বৈরতান্ত্রিক মানসিকতারই প্রতিফলন ঘটেছে। তাই এ অগণতান্ত্রিক ও স্বৈরাচারি ভিসির নেতৃত্বে পরিচালিত বিশ্ববিদ্যালয়ের দিবসের সব কার্মসূচি বর্জনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।
অধ্যাপক ড. আ ফ ম ইউসুফ হায়দার বলেন, বর্তমান ভিসি তার একক সিদ্ধান্তে বাজেট অনুমোদন করা, সিনেট অধিবেশন না ডাকার মাধ্যমে আমাদের চেতনা ও গৌরবকে কলঙ্কিত করেছেন। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মতো গণতান্ত্রিক সুতিকাগারে এ স্বৈরাচারকে মেনে নেয়া যায় না।
অধ্যাপক ড. তাজমেরী এস এ ইসলাম বলেন, বর্তমান ভিসি যে সীমাহীন অনিয়ম করেছেন আমরা যদি তার জোরালো আন্দোলন করতাম তবে এ বিশ্ববিদ্যালয় একাডেমিক কার্যক্রম পিছিয়ে পড়ত। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষা কার্যক্রমের দিকে তাকিয়ে আমরা গঠনতান্ত্রিক আন্দোলন করেছি। কিন্তু এখন আর তার অন্যায় অনিয়ম সহ্য করা হবে না। তার নানা অনিয়ম ও দলীয়করণের প্রতিবাদে কঠোর আন্দোলন গ্রহণ করবে সাদা দল।
এ বিষয়ে ভিসি অধ্যাপক ড. আ আ ম স আরেফিন সিদ্দিককে ফোন করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।