Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ০১ জুলাই ২০১৩, ১৭ আষাঢ় ১৪২০, ২১ শাবান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

স্বরাষ্ট্র সরকারের সবচেয়ে ব্যর্থ ও বিতর্কিত মন্ত্রণালয় : সংসদে বিরোধী দল

সংসদ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
বাজেটের ছাঁটাই প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় বিরোধী দল স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বর্তমান সরকারের সবচেয়ে ব্যর্থ ও বিতর্কিত মন্ত্রণালয় বলে আখ্যায়িত করে। তারা স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড. মহীউদ্দীন খান আলমগীরের প্রতি অভিযোগ তুলে বলেন, জনগণের টাকায় অস্ত্র কিনে তিনি জনগণের বিরুদ্ধে ব্যবহার করছেন। বিরোধী দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে পাগল আখ্যা দিয়ে তাকে পাগলাগারদে পাঠানোর দাবি তোলে।
জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, অস্ত্র ও গোলাবারুদ কিনে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানের চেয়ে বেশি শক্তিশালী গোলাবারুদ কিনে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে।
গতকাল দুপুরে জাতীয় সংসদে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ২০১৩-১৪ অর্থবছরে তার মন্ত্রণালয়ের অনুকূলে নয় হাজার ৫৮৮ কোটি ৬২ লাখ ৯৮ হাজার টাকা বরাদ্দ দেয়ার প্রস্তাব করলে বিরোধী দলের সংসদ সদস্যরা এর বিরুদ্ধে ছাঁটাই প্রস্তাব দিয়ে বলেন, এত টাকা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে বরাদ্দ দেয়া হলে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এই টাকা দিয়ে স্বয়ংক্রিয় অস্ত্র আর গোলাবারুদ কিনে মানুষের সর্বনাশ করবেন।
বিএনপির সংসদ সদস্য নাজিমউদ্দিন আহমেদ বলেন, তিনি শুধু স্টেনগান, বুলডোজার আর আমাদের শরীরে গরম পানি মারার জন্য মেশিন কিনতে চান, হেফাজতে ইসলামকে গুলি করে মারার জন্য অস্ত্র কিনতে চান, সুতরাং তাকে কোনো অর্থ বরাদ্দ দেয়া যাবে না।
বিরোধীদলীয় ভারপ্রাপ্ত চিফ হুইপ শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানি বলেন, ‘স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর মুখে আমরা কখনও হাসি দেখি না। আমাদের ধরছেন তো ধরছেন একটু হাসি দেন। আমরা তো জেলকে ভয় পাই না।’
বিএনপির সংরক্ষিত নারী আসনের সদস্য আসিফা আশরাফি পাপিয়া বলেন, জনগণের প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়েও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী জনগণের স্বার্থ দেখেন না, তিনি দেখেন পুলিশের স্বার্থ। যে পুলিশ বিরোধীদলীয় চিফ হুইপকে প্রকাশ্যে পেটালো, সেই পুলিশকে রাষ্ট্রীয় পদকে ভূষিত করা হয়েছে।
ব্যারিস্টার মাহবুউদ্দিন খোকন বলেন, তত্ত্বাবধায়ক সরকারের দাবিতে যে আন্দোলন চলছে, সেই আন্দোলন দমনের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অস্ত্র কিনবেন। তাই এত টাকা বরাদ্দ চেয়েছেন।
আ ন ম শামসুল ইসলাম বলেন, বর্তমান সরকারের সবচেয়ে ব্যর্থ ও বিতর্কিত মন্ত্রণালয় হচ্ছে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। জনগণের টাকায় কেনা অস্ত্র বিরাধী দল দমনে ব্যবহার করা হচ্ছে, বিরোধী দলের নেতাদের গুম করা হচ্ছে।
সংরক্ষিত নারী আসনের আরেক সদস্য রেহানা আক্তার রানু স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে তৃতীয় শ্রেণীর মাস্তান বলে উল্লেখ করেন। আরেক সদস্য বলেন, যেই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন—ধাক্কা দিয়ে ভবন ফেলে দেয়া যায়, তাতে প্রশ্ন দেখা দেয়, তার মাথা ঠিক আছে কিনা, তাই তাকে টাকা দেয়ার আগে পাবনায় পাঠানো হোক।
বিরোধী দলের বক্তবের জবাব দিতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী মহীউদ্দীন খান আলমগীর বলেন, অস্ত্র ও গোলাবারুদ কিনে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানের চেয়ে বেশি শক্তিশালী গোলাবারুদ কিনে দুর্বৃত্তদের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা হবে।
মন্ত্রী বলেন, যারা বলছেন মতিঝিলে হেফাজতের সমাবেশে র্যাব-পুলিশ-বিজিবি দিয়ে হামলা চালিয়ে হাজার হাজার মানুষ হত্যা করা হয়েছে—তাহলে সেই হাজার হাজার মানুষ গেল কোথায়? তাদের স্বজনরাই বা লাশ নিতে এলেন না কেন?
তিনি প্রশ্ন তুলে বলেন, দেশে এই সন্ত্রাস কারা এনেছিল? কারা স্বৈরাচারী ব্যবস্থা চালু করেছিল? আমি স্পষ্ট করে বলতে চাই, দেশে কাউকেই সন্ত্রাসের রাজত্ব করতে দেয়া হবে না।
মন্ত্রী জানান, দ্রুত বিচার আইন নিয়ে অনেক কথা বলা হয়। দেশের প্রচলিত আইনের মধ্যেই কতিপয় সন্ত্রাসী ও দুর্বৃত্ত দমনে ও বিচারের সম্মুখীন করতেই দ্রুত বিচার আইন প্রয়োগ করা হচ্ছে। এক্ষেত্রে এখনও কোনো অভিযোগ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে আসেনি।