Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ০১ জুলাই ২০১৩, ১৭ আষাঢ় ১৪২০, ২১ শাবান ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

১/১১-এর অন্যতম হোতা জেনারেল মাসুদ উদ্দিনকে জামাই আদরে রেখেছেন হাসিনা

বশীর আহমেদ
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
এক-এগারোর অন্যতম প্রধান হোতা লে. জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীকে রীতিমতো জামাই আদরে রেখেছে শেখ হাসিনা সরকার। বহুল আলোচিত ও বিতর্কিত সাবেক এই সেনা কর্মকর্তা বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ায় বাংলা-দেশের হাইকমিশনার হিসেবে কর্মরত আছেন। সাম্প্রতিক সময়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক-এগারোর কুশীলবদের তীব্র ভাষায় সমালোচনা করছেন। অন্যদিকে প্রধান কুশীলব জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের বয়সসীমা শেষ হওয়ার পর চার দফায় তার চাকরির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের ব্যাপারে শেখ হাসিনার সরকারের এই বিশেষ দুর্বলতা এবং বারবার চাকরির মেয়াদ বাড়িয়ে পুরস্কৃত করায় নানা মহলে বিষয়টি নিয়ে ব্যাপক আলোচনা চলছে। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়সহ সংশ্লিষ্ট বিভাগের কর্মকর্তারা বলছেন, জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের চাকরির মেয়াদ কেন বারবার বাড়ছে তা আমাদের জানা নেই। সরকারের শীর্ষ কর্তাব্যক্তির ইচ্ছাতেই সবকিছু হচ্ছে। ২০১১ সালের ২৯ জুন জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের চাকরির বয়সসীমা শেষ হওয়ার পর প্রথমে তিন মাস করে দু’বার এবং পরবর্তীতে এক বছর করে আরও দুই দফায় চাকরির মেয়াদ বাড়ানো হয়েছে। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ২০০৮ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের জয়লাভ এবং ক্ষমতায় আসার পেছনে যারা বিশেষ ভূমিকা রেখেছিলেন জেনারেল মাসুদ উদ্দিন ছিলেন তাদের অন্যতম। তাই জেনারেল মাসুদ উদ্দিন এক-এগারো ঘটনার প্রধান কুশীলব হওয়া সত্ত্বেও তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে শেখ হাসিনার সরকার তাকে বারবার পুরস্কৃত করছেন।
২০১১ সালের ২৯ জুন জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের বয়স ৫৭ বছর পূর্ণ হয়। তখন স্বাভাবিক নিয়মে তার অবসরে যাওয়ার কথা। কিন্তু ২০১১ সালের ১২ জুন তার চাকরির মেয়াদ তিন মাস বাড়ানো হয়। ওই মেয়াদ বাড়ানোর ব্যাপারে তখন একটি প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে বাংলাদেশ আর্মি রেগুলেশনস (রুলস) ২৫৫ এবং আর্মি রেগুলেশনস ইন্সট্রাকশনস ১৬৭ অনুযায়ী বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিএ-১১৯৫ লে. জেনারেল মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী এনডিসি, পিএসসির চাকরির মেয়াদ ৩০ জুন ২০১১ তারিখ থেকে ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১১ তারিখ পর্যন্ত বর্ধিত করা হলো এবং একই সঙ্গে কর্মকর্তার স্বাভাবিক অবসর সংক্রান্ত প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের প্রজ্ঞাপন বাতিল করা হলো। এরপর ২০১১ সালের সেপ্টেম্বর মাসের শেষদিকে মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীর চাকরির মেয়াদ একই নিয়মে আরও তিন মাস বাড়ানো হয়। এরপর ২০১২ সালের ৯ জানুয়ারি নতুন এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে তৃতীয়বারের মতো জেনারেল মাসুদ উদ্দিনের চুক্তিভিত্তিক চাকরির মেয়াদ এক বছর বাড়ানো হয়। প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, এ আদেশ ২০১১ সালের ৩১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হবে। একই নিয়মে চতুর্থ দফায় তার চাকরির মেয়াদ আরও এক বছর বাড়ানো হয়েছে।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা বলেন, মাসুদ উদ্দিনের চাকরির মেয়াদ বাড়ানোর ব্যাপারে আমাদের কিছু জানা নেই। সবকিছু সেনা সদর ও সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকেই হচ্ছে।
উল্লেখ্য, যে ক’জন সেনা কর্মকর্তা এক-এগারোর ঘটনা ঘটিয়েছিলেন, মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী তাদের মধ্যে প্রধান হোতা। এক-এগারোর ঘটনার সময় তিনি নবম ডিভিশনের জিওসি ছিলেন। তিনি সেনা ও সাঁজোয়া যান নিয়ে বঙ্গভবন ঘেরাও করেছিলেন বলে খবর প্রচারিত হয়। পরে সেনাসমর্থিত ফখরুদ্দীন সরকারের আমলে তথাকথিত দুর্নীতিবিরোধী অভিযান এবং দুর্নীতির মামলাগুলো তদারকির জন্য যে টাস্কফোর্স গঠন করা হয়েছিল, তার সমন্বয়কের দায়িত্বে ছিলেন বিতর্কিত এ সেনা কর্মকর্তা। ২০০৮ সালের মাঝামাঝি জেনারেল মইন উ আহমেদের সঙ্গে তার সম্পর্কের অবনতি ঘটে। ২ জুন ২০০৮ তারিখে লে. জেনারেল মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীকে প্রিন্সিপাল স্টাফ অফিসার পদ থেকে ডিফেন্স কলেজের কমান্ড্যান্ট পদে বদলি করা হয়। এর মাত্র ৬ দিন পর ৮ জুন ২০০৮ তারিখে তার চাকরি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে ন্যস্ত হয়। পরে তাকে অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের হাইকমিশনার হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয়। আওয়ামী লীগ সরকারে আসার পর তাকে দেশে ফিরিয়ে আনা হবে বলে বিভিন্ন পর্যায় থেকে বলা হলেও বাস্তবে ঘটেছে তার উল্টো। বর্তমান সরকার তার বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা না নিয়ে বরং দফায় দফায় তার চাকরির মেয়াদ বাড়িয়ে পুরস্কৃত করে চলেছে। ২০১১ সালের ২৮-২৯ অক্টোবর কমনওয়েলথ শীর্ষ সম্মেলনে যোগ দিতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অস্ট্রেলিয়া যান। এ সময় প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে লে. জেনারেল মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীর সাক্ষাত্ হয়। তখন গুঞ্জন ছিল, মাসুদ উদ্দিন চৌধুরীর সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ একটি সমঝোতা হয়েছে। সেই গুঞ্জনই সত্য বলে এখন প্রতীয়মান হচ্ছে। যার কারণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এক-এগারো কুশীলবদের তীব্র সমালোচনা করলেও জেনারেল মাসুদ উদ্দিনকে জামাই আদরে রেখেছেন। আওয়ামী লীগ সরকারের মেয়াদের শেষ পর্যন্ত জেনারেল মাসুদ উদ্দিন অস্ট্রেলিয়ায় বাংলাদেশের হাইকমিশনার হিসেবে থাকবেন তা এখন নিশ্চিত।