Amardesh
আজঃঢাকা, সোমবার ২০ মে ২০১৩, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২০, ৯ রজব ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 কার্টুন
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

জিয়াউদ্দিনের বিরুদ্ধে রুলের নিষ্পত্তি : সা. কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে আরও তিন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ : সৈয়দ কায়সারকে গ্রেফতার করা হয়নি : প্রসিকিউশন

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
বেলজিয়াম প্রবাসী আহমেদ জিয়াউদ্দিনের বিরুদ্ধে জারি করা রুল কিছু পর্যবেক্ষণসহ নিষ্পত্তি করেছে দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল। চেয়ারম্যান বিচারপতি নিজামুল হকের সঙ্গে স্কাইপে কথোপকথনের জের ধরে আদালত অবমাননার এ রুল জারি করা হয়েছিল। গতকাল কিছু পর্যবেক্ষণসহ রুলটির নিষ্পত্তি করে দেয় বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বাধীন ৩ সদস্যের দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল।
বিচারপতি নিজামুল হকের সঙ্গে আহমেদ জিয়াউদ্দিনের স্কাইপে কথোপকথন প্রকাশ করে দৈনিক আমার দেশ। এরপর গত বছরের ১১ ডিসেম্বর বিচারপতি নিজামুল হক পদত্যাগ করায় দুটি ট্রাইব্যুনালই পুনর্গঠন করা হয়। গত ৩ জানুয়ারি জিয়াউদ্দিনের বিরুদ্ধে স্বতঃস্ফূর্তভাবে (সুয়োমোটো) রুল নোটিশ জারি করে দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল। স্কাইপ কথোপকথন সত্যি কিনা এবং সত্যি হলে কোন ক্ষমতাবলে বিচারিক বিষয়ে তিনি মত দিয়েছেন, তার ব্যাখ্যা ৩০ দিনের মধ্যে দিতে বলা হয় আহমেদ জিয়াউদ্দিনকে। ট্রাইব্যুনালের আদেশ পাওয়ার ৩০ দিনের মধ্যে, অর্থাত্ ১৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে জিয়াউদ্দিনকে এর জবাব দিতে বলা হয়।
জিয়াউদ্দিন আট সপ্তাহের সময় চেয়ে বেলজিয়ামের রাজধানী ব্রাসেলসে বাংলাদেশ দূতাবাসের মাধ্যমে আবেদন করলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে আবেদনটি ট্রাইব্যুনালে পৌঁছায়। এ আবেদনের ভিত্তিতে আরও ১০ সপ্তাহের সময় দিয়ে ৩০ এপ্রিলের মধ্যে শোকজ নোটিশের জবাব দিতে জিয়াউদ্দিনকে নির্দেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল। আহমেদ জিয়াউদ্দিনের দেয়া লিখিত জবাব পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে গত ২৪ এপ্রিল পৌঁছে। ট্রাইব্যুনাল ২৯ এপ্রিল তা পায়। এরপর গত ১৩ মে এ বিষয়ে আদেশ দেয়ার জন্য গতকাল ১৯ মে দিন ধার্য করে দিয়েছিল দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল।
সা. কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে আরও তিন সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ : চেয়ারম্যান বিচারপতি এটিএম ফজলে কবীরের নেতৃত্বে তিন সদস্যের ট্রাইব্যুনালে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর বিরুদ্ধে গতকাল ৩৭, ৩৮ ও ৩৯তম সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এরা হচ্ছেন রাউজান উপজেলার ঊনসত্তর পাড়ার চপলা রানী (৭৮), জব্দ তালিকার সাক্ষী চট্টগ্রামের এএসআই এরশাদুল হক ও ডিএসবি ইন্সপেক্টর মোল্লা আবদুল হাই। কাল পরবর্তী সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য দিন ধার্য করেছে ট্রাইব্যুনাল। সাক্ষীকে জেরা করেন সালাহউদ্দিন কাদের চৌধুরীর আইনজীবী আহসানুল হক হেনা। এদিকে গতকাল জামায়াত নেতা মাওলানা মতিউর রহমান নিজামীর বিরুদ্ধে ৮তম সাক্ষীর সাক্ষ্য গ্রহণ আজ সোমবার পর্যন্ত মুলতবি করেছে ট্রাইব্যুনাল।
সৈয়দ কায়সারকে গ্রেফতার করা হয়নি : প্রসিকিউশন : ১৯৭১ সালের মানবতাবিরোধী অপরাধের অভিযোগে জাতীয় পার্টি আমলের সাবেক কৃষি প্রতিমন্ত্রী সৈয়দ মা. কায়সারকে পুলিশ গ্রেফতার করেনি। তাকে রাজধানীর এ্যাপলো হাসপাতালে পুলিশি নজরদারিতে রাখা হয়েছে। গতকাল ট্রাইব্যুনালের সামনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে প্রসিকিউটর রানাদাশ গুপ্ত এ কথা বলেন। তিনি বলেন, গত ১৫ মে দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করার পর সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সার গ্রেফতার এড়াতে দ্রুত এ্যাপলো হাসপাতালে ভর্তি হন। ১৬ মে রাতে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করেছে বলে বিভিন্ন গণমধ্যমে তা প্রচার করা হয়। তিনি বলেন, আমরা প্রসিকিউশনের কাছ থেকে খবর নিয়ে দেখেছি, তিনি এখনো গ্রেফতার হননি, পুলিশি নজরদারিতে রাখা হয়েছে। বর্তমানে সৈয়দ মোহাম্মদ কায়সার ওই হাসপাতালে সিসিইউতে রয়েছেন। উল্লেখ্য, গত ১৫ মে প্রসিকিউশনের এক আবেদনের প্রেক্ষিতে চেয়ারম্যান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে তিন সদস্যের দ্বিতীয় ট্রাইব্যুনাল সৈয়দ মো. কায়সারকে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করে। গ্রেফতারের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তাকে ট্রাইব্যুনালে হাজির করার নির্দেশ দেয় ট্রাইব্যুনাল।