Amardesh
আজঃঢাকা, মঙ্গলবার ৮ জানুয়ারি ২০১৩, ২৫ পৌষ ১৪১৯, ২৫ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

সাভারে কলেজছাত্রী ধর্ষণ মামলার নায়করা ধরাছোঁয়ার বাইরে : জবানবন্দি দিয়েছে ধর্ষিতা

সাভার প্রতিনিধি
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
সাভারে কলেজছাত্রী ধর্ষণ ও সেই দৃশ্য ভিডিওতে ধারণ করে বাজারে ছাড়ার ভয় দেখিয়ে ধর্ষিতার পরিবার থেকে টাকা আদায়ের চেষ্টার ঘটনায় সর্বত্র তোলপাড় চলছে। ধর্ষিত কলেজছাত্রী গতকাল ঢাকার চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ঘটনার বিবরন উল্লেখ করে জবানবন্দি দিয়েছে। তাকে রাজধানীর আগারগাঁওয়ে মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সেভ হোমে নিরাপত্তা হেফাজতে পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে। এর আগে রোববার ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে তার ডাক্তারি পরীক্ষা হয়েছে।
এ ঘটনায় পুলিশ ধর্ষিতার এক বান্ধবীসহ ৫ জনকে গ্রেফতার করে ৪ দিনের রিমান্ডে আনার ৩ দিন অতিবাহিত হলেও তাদের তেমন জিজ্ঞাসাবাদ করছে না। তাদের কাছ থেকে গুরুত্বপূর্ণ কোনো তথ্য আদায় করতে পারেনি পুলিশ। এ ঘটনায় ভিডিও দৃশ্যটি জব্দ করলেও মূল নায়করা রয়েছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত মূল নায়কদের পুলিশ ধরতে না পারায় ধর্ষিতার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে। এদিকে সিঙ্গাইরে ধর্ষিতার গ্রামের বাড়ি এলাকায় সবার মাঝে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তেজনা বিরাজ করছে। এ ঘটনায় পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা একের পর এক সাভার থানায় আসামিদের জিজ্ঞাসাবাদ করে মূল আসামিদের ধরতে পারছে না পুলিশ এ অভিযোগ ধর্ষিতার পরিবারের। ধর্ষিতার পরিবারের অভিযোগ পুলিশের তদন্তে কোনো অগ্রগতি নেই। ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে ধর্ষণ ঘটনার মূল নায়ক জাহেদ ওরফে রাজু এবং ভিডিও ধারণকারী শাহীন।
সাভার থানায় ধর্ষণ মামলায় ৯ জন আসামি থাকলেও এজাহারভুক্ত ২ জনসহ মোট ৫ জনকে পুলিশ আটক করলেও এজাহারভুক্ত ৭ আসামি এখনও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। পলাতক আসামিরা হচ্ছে জাহেদ ওরফে রাজু, শাহিন, শামিম, সুজন, লুত্ফর, আলীম ও মাসুদ। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে মানিকগঞ্জ জেলার সিঙ্গাইর উপজেলার আজিমপুর গ্রামের আসাদুজ্জামান দানেশ (২৬), কাংসা গ্রামের রায়হান (২২), মহিউদ্দিন ওরফে মহিদুর (২৪) ও সুচি ওরফে লিজা (১৮) ওই তরুণীকে গণধর্ষণ ও সেই দৃশ্য ভিডিওতে ধারণের কথা স্বীকার করেছে। এদিকে পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গেলে ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামি জাহেদের পড়ার টেবিলের ড্রয়ার থেকে একটি চাপাতি ও দু’টি ডায়েরি উদ্ধার করেছে।
এদিকে ঘটনা ধামাচাপা দিতে ধর্ষক রায়হানের বাবা শুক্রবার দুপুরে ওই ফ্ল্যাটে গিয়ে খাট, কম্পিউটারসহ মূল্যবান সামগ্রী নিয়ে গেছে। তিনি মামলার সব আলামত নিয়ে গেছেন। ফ্ল্যাটের জাহেদের রুমের সবকিছু এলোমেলা অবস্থায় পড়ে আছে। এ ব্যাপারে তদন্ত কর্মকর্তা আশরাফুল আলম বলেন, ঘটনাস্থল সিলগালা করতে কোর্টের অনুমতি নিতে হয়। অনুমতি নেয়া হয়নি তাই সিলগালা করা হয়নি। মামলার অগ্রগতি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ধর্ষণ মামলার পলাতক আসামিদের ধরার জন্য ও অতীতে এ ধরনের কোনো ঘটনার সঙ্গে জড়িত আছে কিনা সে ব্যাপারে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে এবং পলাতক আসামিদের ধরার জন্য সাভার ও সিঙ্গাইরে একাধিক টিম একযোগে কাজ করছে বলে তিনি জানান।
২৫ নভেম্বর সিঙ্গাইর ডিগ্রি কলেজের একাদশ শ্রেণীর প্রথমবর্ষের ছাত্রী সুচি ওরফে লিজা তার এক বান্ধবীকে (১৮) পরীক্ষার কথা বলে বাড়ি থেকে ডেকে আনে। পথে লিজা তার ফুফুর অসুস্থতার কথা বলে তাকে দেখার জন্য বান্ধবীকে নিয়ে সাভার ব্যাংক কলোনি ছাপড়া মসজিদের উত্তর পাশের এম এ রহমান ভবনের নিচতলায় নিয়ে ব্যাচেলর মেসে বান্ধবীকে বখাটে ধর্ষক ছাত্রদের হাতে তুলে দেয়।
ইউএনও-কে স্মারকলিপি : সাভারে কলেজ শিক্ষার্থীকে ধর্ষণ ও ভিডিওচিত্র ধারণ ঘটনার প্রধান আসামি ও সহযোগীদের দ্রুততম সময়ের মধ্যে গ্রেফতার এবং এরই মধ্যে গ্রেফতারকৃতদেরসহ এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে যারা জড়িত তাদের দ্রুতবিচার আদালতে বিচারের ব্যবস্থা করা এবং সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ডের দাবি জানিয়ে সাভার উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে স্মারকলিপি দেয়া হয়েছে। গতকাল সকালে সচেতন সাভারবাসীর ব্যানারে স্মারকলিপিতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশ মহিলা পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য পারভীন ইসলাম, মহিলা পরিষদ সাভার শাখার সহ-সাধারণ সম্পাদক সীমা দেওয়ান, সচেতন নাগরিক কমিটি সাভারের সভাপতি জয়নাল আবেদীন খান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান রোকেয়া হক, এদেশ এর সমন্বয়কারী ইয়াকুব নবী, সাভার প্রেস ক্লাবের সভাপতি তুহিন খান, সাভারে উদীচী সদস্য সাজেদা বেগম সাজু, মুক্তিযোদ্ধা কাইয়ুম খান, উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা রহিস উদ্দিন ভূঁইয়া, সাভার কলেজের অধ্যাপক কালী প্রসন্ন দাস প্রমুখ।