Amardesh
আজঃঢাকা, মঙ্গলবার ৮ জানুয়ারি ২০১৩, ২৫ পৌষ ১৪১৯, ২৫ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

সিটি করপোরেশন ঘোষণায় আনন্দে ভাসছে গাজীপুর

গাজীপুর প্রতিনিধি
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
গাজীপুরবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশিত ‘গাজীপুর সিটি করপোরেশন’ অবশেষে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় কমিটি (নিকার) সভায় অনুমোদিত হয়েছে। ফলে গাজীপুরবাসীর দীর্ঘদিনের প্রত্যাশা পূরণ হবে। গতকাল স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) আইন ২০০৯ ও স্থানীয় সরকার বিধিমালা ২০১০ অনুযায়ী গাজীপুর ও টঙ্গী পৌরসভা এলাকার সমন্বয়ে গঠিত গাজীপুর সিটি করপোরেশনকে অনুমোদন দিয়েছে সরকার।
সিটি করপোরেশন অনুমোদনের সংবাদ প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গে গাজীপুর শহর ও টঙ্গীসহ বিভিন্ন এলাকায় জনসাধারণ আনন্দ উল্লাসে মেতে ওঠে। দুপুরের পর থেকে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সংগঠনসমূহের উদ্যোগে গাজীপুর শহর, চান্দনা চৌরাস্তা, বোর্ডবাজার, কাশিমপুর, মোগরখাল, টঙ্গীসহ বিভিন্ন এলাকায় আনন্দ মিছিল বের হয় এবং মিষ্টি বিতরণ করা হয়। সিটি করপোরেশন অনুমোদনের পরপরই সম্ভাব্য মেয়র ও কাউন্সিলর প্রার্থীরা নড়েচড়ে উঠেছেন। তারা বিভিন্নভাবে স্থানীয় ভোটারদের দৃষ্টি আকর্ষণের চেষ্টা চালাচ্ছেন এবং মোবাইলে বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় শুরু করেছেন।
এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সংসদ সদস্য অ্যাডভোকেট আকম মোজাম্মেল হক বলেন, আমরা এ সংবাদে অত্যন্ত আনন্দিত। সিটি করপোরেশন ঘোষণা করায় জেলা আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি। জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আজমত উল্লাহ খান বলেন, গাজীপুরবাসীর ভাগ্যোন্নয়ন ও সেবার মান নিশ্চিত করতে ইতোপূর্বে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার দেয়া প্রতিশ্রুতি পূরণ করায় গাজীপুরবাসীর পক্ষ থেকে আমি প্রধানমন্ত্রীকে অভিনন্দন জানাচ্ছি।
বিএনপি নেতা ও সম্ভাব্য মেয়র পদপ্রার্থী বিশিষ্ট্য শিল্পপতি আলহাজ আলাউদ্দিন চৌধুরী সাংবাদিকদের কাছে তার অনুভূতি ব্যক্ত করে বলেন, দেরিতে হলেও সরকারের এ অনুমোদনকে আমি স্বাগত জানাই। আমি আশা করি, সরকার দ্রুততম সময়ের মধ্যে নির্বাচনের ব্যবস্থা করে গাজীপুরবাসীর আকাঙ্ক্ষা পূরণ করবেন।
গাজীপুর উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান ও সম্ভাব্য মেয়র পদপ্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমরা দীর্ঘ দু’বছর যাবত সিটি করপোরেশন বাস্তবায়নের জন্য আন্দোলন করে আসছি। এ অনুমোদনের মাধ্যমে আমাদের সে আন্দোলন সফল হলো। এজন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবান। আমরা আগামীতে নগর জীবনকে সুন্দর ও অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ জনপদ হিসেবে গাজীপুরকে গড়ে তুলতে চাই।
গাজীপুর সিটি করপোরেশনের সীমানা চূড়ান্ত করেছে স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়। এরই মধ্যে এ সিটি করপোরেশনের সীমানাও নির্ধারণ করা হয়েছে। প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) আগামী বৈঠকেই গাজীপুর সিটি করপোরেশনের প্রস্তাব চূড়ান্ত অনুমোদন পেতে পারে। এদিকে প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটি (নিকার) গতকাল পুনর্গঠন করা হয়েছে। কমিটিতে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ড মহীউদ্দীন খান আলমগীরকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। সংশ্লিষ্ট সূত্র এ তথ্য জানিয়েছে। নিকারের অনুমোদনের জন্য স্থানীয় সরকার পলস্নী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের প্রস্তুত করা গাজীপুর সিটি করপোরেশন সংক্রান্ত সার-সংক্ষেপে বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য , গাজীপুর সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার প্রস্তাবটি স্থানীয় সরকার (সিটি করপোরেশন) প্রতিষ্ঠা বিধিমালা ২০১০-এর বিধি ৪(১) মোতাবেক সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠার মানদণ্ড অর্জন করায় গাজীপুর জেলা প্রশাসক গণবিজ্ঞপ্তি জারি করে বিভিন্ন বিষয়ে আপত্তি নিষ্পত্তি করেছেন। গাজীপুর ও টঙ্গী পৌরসভার সমন্বয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশন প্রতিষ্ঠিত হলে এর আয়তন হবে সর্বমোট ২৩৯ দশমিক ৫৩ বর্গকিলোমিটার। স্থানীয়রা দীর্ঘদিন ধরে গাজীপুর ও টঙ্গী পৌরসভা এলাকার জনসংখ্যা, জনসংখ্যার ঘনত্ব, স্থানীয় রাজস্ব আয়, বাণিজ্যিক গুরম্নত্ব, ভৌত অবকাঠামোগত সুবিধাদি এবং আয়তন বিবেচনা করে ওই দু’পৌরসভা সমন্বয়ে গাজীপুর সিটি করপোরেশন গঠনের দাবী করে আসছিল ।