Amardesh
আজঃঢাকা, মঙ্গলবার ৮ জানুয়ারি ২০১৩, ২৫ পৌষ ১৪১৯, ২৫ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

বিমানে আজ থেকে লাগাতার ধর্মঘট : কর্মকর্তারা বলাকায় ঢুকতে পারেননি

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
শ্রমিক লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ প্রত্যাহারসহ সাত দফা দাবিতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের শ্রমিক-কর্মচারীরা আজ থেকে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দিয়েছেন। গতকাল বিমানের প্রধান কার্যালয় বলাকার সামনে দিনভর অবস্থান কর্মসূচির পর বিকালে বিমান শ্রমিক লীগের সভাপতি মশিকুর রহমান এই ঘোষণা দেন।
মশিকুর রহমান বলেন, আমরা আন্দোলনে যেতে চাইনি। আমাদের দেয়ালে পিঠ ঠেকে গেছে বলেই আমরা আন্দোলনে যেতে বাধ্য হয়েছি। প্রধানমন্ত্রী ছাড়া সম্ভাব্য সব জায়গায় আমাদের দাবির কথা জানিয়েছি। বিমানমন্ত্রীর নির্দেশনা সত্ত্বেও আমাদের দাবি মানা হয়নি।
তিনি বলেন, দীর্ঘদিন ধরে ছয় দফা দাবিতে আমরা আন্দোলন করে আসছিলাম। সেই পরিপ্রেক্ষিতে বিমানমন্ত্রী গত মার্চে আমাদের চারটি দাবি মেনে নেয়ার নির্দেশ দেন। কিন্তু কোনো দাবি পূরণ না করে উল্টো আমার বিরুদ্ধে বিভাগীয় মামলা ও কারণ দর্শানোর নোটিশ দেয়া হয়। তাই দাবি পূরণে আমরা কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হচ্ছি।
সভাপতির বিরুদ্ধে বিমান কর্তৃপক্ষের আনা অভিযোগ প্রত্যাহার, আহার ইউনিফর্ম ভাতা ও ভারত থেকে আনা বিমানের সেটআপ বাস্তবায়ন, কর্মচারীদের ব্যক্তিগত টিপি বাস্তবায়ন, একশ’ ভাগ চিকিত্সা ভাতা দেয়া এবং পাঁচ বছরেরও বেশি সময় ধরে কাজ করা কর্মচারীদের স্থায়ী করার দাবিতে এই আন্দোলন চালিয়ে আসছে সরকার-সমর্থক সংগঠনটি। মঙ্গলবার ভোর ৬টা থেকে এই লাগাতার ধর্মঘট শুরু হবে বলে মশিকুর রহমান জানান।
শ্রমিকরা ধর্মঘটে গেলে হজরত শাহজালাল (র.) আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গ্রাউন্ড হ্যান্ডলিং কার্যক্রম দারুণভাবে ব্যাহত হতে পারে। আর সেক্ষেত্রে দেশের প্রধান বিমানবন্দরে উড়োজাহাজ ওঠানামাও বন্ধ হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
বিমান শ্রমিক লীগের ব্যানারে সরকার সমর্থক বিমান শ্রমিকরা গতকাল সোমবার বিমানের প্রধান কার্যালয় বলাকা ভবনের সামনে অবস্থান নেন। সকাল ৯টা থেকে অবস্থান নিয়ে বিকাল ৫টা পর্যন্ত কার্যালয়ের ভেতরে কোনো কর্মকর্তাকে প্রবেশ করতে দেয়নি।
সকালে বিমানের কর্মকর্তারা কার্যালয়ে ঢুকতে গিয়ে আন্দোলনরতদের বাধার মুখে প্রধান ফটক থেকেই ফিরে যান। পরে বিকাল ৪টায় বিমানের পরিচালক (প্রশাসন) রাজপতি সরকারের নেতৃত্বে তিন সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল বলাকায় প্রবেশ করে। বিমানের মহাব্যবস্থাপক (প্রশাসন) আতিক সোবহান ও উপ-প্রধান (প্রশিক্ষণ) ক্যাপ্টেন শামীম নজরুল এ সময় তার সঙ্গে ছিলেন।
আগের দিন একই দাবিতে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ভারপ্রাপ্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) ক্যাপ্টেন মোসাদ্দেক আহমেদকে বলাকা ভবনে ১১ ঘণ্টা অবরুদ্ধ করে রাখেন শ্রমিক লীগের কর্মীরা। রাত ২টায় পুলিশের হস্তক্ষেপে মুক্ত হন এমডি মোসাদ্দেক।
গতবছর মার্চে বিমান কর্মীদের এই সংগঠন চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন আহমেদের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরু করে। মানববন্ধন, সমাবেশ, অবস্থান কর্মসূচির পর একপর্যায়ে তারা সর্বাত্মক ধর্মঘটের ডাক দেয়। পরে বেসামরিক বিমান চলাচলমন্ত্রী দাবি পূরণের আশ্বাস দিলে ধর্মঘট স্থগিত করা হয়।
মূলত গত বছরের মার্চে বিমানের চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন আহমেদের পদত্যাগের দাবিতে গড়ে ওঠা আন্দোলনের জের ধরে রোববার নতুন করে উত্তপ্ত হয়ে উঠল রাষ্ট্রীয় পতাকাবাহী এয়ারলাইন্স।
রোববার দুপুরে সামান্য কয়েকজন শ্রমিক-কর্মচারী বিমানের এমডির কাছে দাবি-দাওয়া নিয়ে গেলেও রাত সাড়ে ৯টা থেকে নতুন করে কয়েকশ’ শ্রমিক-কর্মচারী এই আন্দোলনে যোগ দেন। এ সময় কয়েকশ’ শ্রমিক-কর্মচারী এমডির কক্ষের সামনে অবস্থান নিয়ে তাদের দাবি আদায়ে বিভিন্ন স্লোগান দেন।
ক্ষুব্ধ শ্রমিক-কর্মচারীরা জানান, এর আগে অনেকবার আশ্বাস দিয়েও কোনো দাবিই মানেনি বিমান কর্তৃপক্ষ। তাই এবার আর কোনো আশ্বাসে তারা বিশ্বাস রাখতে পারছেন না। আর এজন্যই এবার কঠোর আন্দোলনে যাচ্ছেন তারা। রোববার দুপুরে বিমান কর্মচারীরা যখন আন্দোলন শুরু করেন, তখন সংস্থার চেয়ারম্যান জামাল উদ্দিন আহমেদ অফিসে ছিলেন না।