Amardesh
আজঃঢাকা, মঙ্গলবার ৮ জানুয়ারি ২০১৩, ২৫ পৌষ ১৪১৯, ২৫ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

এমপিওভুক্তির দাবিতে শিক্ষকরা আন্দোলনে

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
সব নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রেখে সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা এমপিওভুক্তির (বেতনভাতা বাবদ মাসিক সরকারি টাকা) দাবিতে গতকাল সকাল থেকে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট শুরু করেছেন। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত এই কর্মসূচি চলবে বলে জানিয়েছেন শিক্ষকরা। এ কর্মসূচির কারণে রাস্তার একপাশে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে। ফলে দীর্ঘ যানজট সৃষ্টি হচ্ছে।
নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান শিক্ষক-কর্মচারী ঐক্যজোটের ব্যানারে চলছে এই আন্দোলন কর্মসূচি। বুকে-পিঠে শিক্ষক-কর্মচারীরা লিখে রেখেছেন ‘এক দফা এক দাবি এমপিও কবে দিবি’ ইত্যাদি। সংগঠনের সভাপতি অধ্যক্ষ মো. এশারত আলী বলেন, শিক্ষামন্ত্রী ও শিক্ষা সচিবের দফায় দফায় আশ্বাসের পরও তাদের দাবির ব্যাপারে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষকদের বৈঠকের কোনো ব্যবস্থা করা হয়নি। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে শিক্ষক নেতাদের বৈঠক এবং নন-এমপিও শিক্ষকদের দাবি নিয়ে এক ধরনের ধূম্রজাল সৃষ্টি করা হয়েছে। তিনি অভিযোগ করে বলেন, নিরীহ শিক্ষকরা মনে করছেন তারা এক ধরনের প্রতারণার ফাঁদে পড়েছে। এ ধরনের অবস্থা দেশের শীর্ষ পর্যায়ের নেতৃত্ব থেকে আশা করে না শিক্ষক সমাজ। সভাপতি এশারত আরও বলেন, লাগাতার অবস্থান ধর্মঘট থেকে শিক্ষকরা আমরণ অনশন শুরু করবেন। এছাড়া শিক্ষকদের বিকল্প কিছু নেই। কারণ ৪ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও জেলার পীরগঞ্জ উপজেলার খনগাঁও বিশ্বাসপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক দিলীপ কুমার রায় ধারদেনা ও অভাব-অনটনে জর্জরিত হয়ে আত্মহননের পথ বেছে নিতে বাধ্য হয়েছেন। এ শিক্ষক ১৯৯৮ সাল থেকে বিনা বেতনে শিক্ষকতা করে আসছিলেন ওই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে। এমপিওভুক্তির আশায় তিনি দীর্ঘদিন প্রতীক্ষার প্রহর গুনেছিলেন। কর্মসূচিতে শিক্ষক নেতারা বলেন, মাধ্যমিক স্কুল-কলেজ-কারিগরি ও মাদরাসার স্বীকৃতিপ্রাপ্ত ৭ হাজারের মতো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এখন পর্যন্ত এমপিওভুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। এমপিওভুক্তি খাতে অর্থের অভাবের কথা বলা হচ্ছে, কিন্তু শিক্ষা খাতে বড় ধরনের বরাদ্দ থেমে নেই। ২৬ হাজার রেজি. প্রাথমিক বিদ্যালয় সরকারিকরণ করতে যাচ্ছে সরকার। ৩৭ হাজার প্রাথমিক বিদ্যালয়ে দফতরি নিয়োগ হতে যাচ্ছে। শিক্ষানীতি বাস্তবায়নে অনেক প্রাথমিক স্কুলে ষষ্ঠ শ্রেণী খোলা হচ্ছে ২০১৩ সালে, সেখানে নতুন শিক্ষক নিয়োগ হচ্ছে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বাড়িভাড়া ও চিকিত্সাভাতা বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।
শিক্ষক নেতারা বলেন, নন-এমপিও শিক্ষকরা সরকারের এসব সিদ্ধান্তকে স্বাগত ও সাধুবাদ জানায়। অথচ স্বীকৃতিপ্রাপ্ত নন-এমপিও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সব ধরনের যোগ্যতা থাকার পরও এসব প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যত্ নিয়ে সরকারের কোনো মাথাব্যথা নেই। গত অক্টোবর মাসে একই দাবিতে কর্মসূচি পালনের সময় পুলিশ তাদের লাঠিপেটা করে। তখন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে জানানো হয়, দু-একদিনের মধ্যেই প্রধানমন্ত্রী তাদের সঙ্গে দাবি নিয়ে বৈঠক করবেন। কিন্তু এখনও সেই বৈঠক হয়নি। এজন্য তারা বাধ্য হয়ে আবার কর্মসূচি পালন করছেন এবং দাবি পূরণ না হওয়া পর্যন্ত এটি চলবে বলে শিক্ষক নেতারা জানান। ঐক্যজোটের সাধারণ সম্পাদক অধ্যক্ষ তাপস কুমার কুণ্ডু বলেন, নন-এমপিও স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করার দাবিতে আমরা ঐক্যবদ্ধ আন্দোলন শুরু করেছি। এমপিওর ঘোষণা না আসা পর্যন্ত লাগাতার অবস্থান কর্মসূচি চলবে।