Amardesh
আজঃঢাকা, রোববার ৬ জানুয়ারি ২০১৩, ২৩ পৌষ ১৪১৯, ২৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

বিদ্যুত্ ও তেলের মূল্যবৃদ্ধি রোধে ভোক্তারা আইনের আশ্রয় নেবে : ক্যাব

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
অযৌক্তিকভাবে বার বার বিদ্যুত্ ও তেলের দাম বাড়ানো ভোক্তাদের সঙ্গে প্রতারণার শামিল। লাগামহীন দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া বন্ধ করতে হবে। মূল্যবৃদ্ধি রোধে প্রয়োজনে ভোক্তারা আইনের আশ্রয় নেবে। দফায় দফায় বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রতিবাদে গতকাল এক সংবাদ সম্মেলন ক্যাবের পক্ষ থেকে একথা বলা হয়।
ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন ক্যাবের বিদ্যুত্ ও জ্বালানি উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. এম শামসুল আলম। ক্যাবের সভাপতি কাজী ফারুক ও সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট হুমায়ুন কবীর ভূঁইয়া এ সময় উপস্থিত ছিলেন। এ সময় তারা বিদ্যুতের দাম আবার না বাড়াতে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের (বিইআরসি) প্রতি আহ্বান জানান।
কাজী ফারুক বলেন, অযৌক্তিকভাবে জ্বালানি তেল ও বিদ্যুতের মূল্যবৃদ্ধি রোধে ভোক্তারা আইনের আশ্রয় নিতে বাধ্য হবে।
ড. এম শামসুল আলম তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, অস্বাভাবিক কম সময়ে পাঁচটি বিদ্যুত্ বিতরণ কোম্পানির বিদ্যুতের দাম বাড়ানোর প্রস্তাবের ওপর বিইআরসিতে একাধিক গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। সব প্রস্তাবই বিভিন্ন দিক দিয়ে ত্রুটিপূর্ণ ছিল। প্রস্তাবগুলো আমলযোগ্য ছিল না। কিন্তু তারপরও এসব প্রস্তাবের ওপর সরাসরি গণশুনানি অনুষ্ঠিত হয়েছে। তিনি বলেন, এ সরকারের আমলে আর বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হবে না এমন কথা স্পষ্টভাবে বলে বিইআরসি একবারে খুচরা বিদ্যুতের দাম গণশুনানি ছাড়াই ১৫% বৃদ্ধি করে। কিন্তু বিইআরসি সেই প্রতিশ্রুতি রক্ষা করতে পারেনি। আবার দাম বাড়ানোর প্রক্রিয়া শুরু করেছে।
শামসুল আলম বলেন, পিডিবি ১২%, আরইবি ৯%, ওজোপাডিকো ৯.৫৯%, ডেসকো ১১.৬৯% ও ডিপিডিসি ১১.৩১% দাম বাাড়নোর আবেদন করেছে। কিন্তু গণশুনানিতে বিতরণকারী সংস্থাগুলো তাদের নিজ নিজ প্রস্তাবের যৌক্তিকতা প্রমাণ করতে পারেনি। গণশুনানিতে প্রমাণিত হয়েছে আরইবি আর্থিক ঘাটতি নেই। পিডিবির ক্ষেত্রে বিদ্যুত্ উত্পাদনে তেলের চেয়ে গ্যাস বেশি ব্যবহার হওয়ার কারণে বিদ্যুত্ উত্পাদন ব্যয় হ্রাস পাবে। তাই পিডিবির আর্থিক ঘাটতি মোকাবিলায় দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হবে না। ডেসকো তাদের মুনাফা বৃদ্ধির জন্য মূল্যবৃদ্ধির প্রস্তাব দিয়েছে। বিইআরসির কারিগরি কমিটি বলেছে, ডেসকোর আর্থিক ঘাটতি নেই। তবে তাদের মুনাফার ধারা অব্যাহত রাখার জন্য ৩.৩০% মূল্যবৃদ্ধির সুপারিশ করা হয়েছে। ডিপিডিসিও দাম বাড়ানোর পক্ষে যুক্তি তুলে ধরতে পারেনি।
দাম বাড়ানোর বিরোধিতা করে সংবাদ সম্মেলনে ক্যাবের পক্ষ থেকে কিছু সুপারিশ করা হয়। বলা হয়, জ্বালানি তেলের দাম বাড়লেও পরিবহনের ভাড়া না বাড়ানো, বিইআরসির কাছ থেকে সব বিতরণ কোম্পানির মূল্যবৃদ্ধির প্রস্তাব প্রত্যাহার, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির নির্বাহী আদেশ স্থগিত রেখে গণশুনানির জন্য বিইআরসিতে বিপিসির প্রস্তাব প্রেরণ ইত্যাদি।