Amardesh
আজঃঢাকা, রোববার ৬ জানুয়ারি ২০১৩, ২৩ পৌষ ১৪১৯, ২৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

নিত্যপণ্যের দাম ৪ বছরে তিনগুণ

কাজী জেবেল
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
নিত্যপণ্যের আকাশচুম্বী দামে দিশেহারা হয়ে পড়েছেন সাধারণ মানুষ। আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকারের চার বছরে বিভিন্ন পণ্যের দাম দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ পর্যন্ত বেড়েছে। ঈদসহ বিভিন্ন উত্সবে বাজারে পণ্যমূল্য আকস্মিকভাবে বাড়া ছাড়াও বেশি ব্যবহার করা পণ্যগুলোর দাম কয়েক দফায় বেড়েছে। খাদ্যপণ্যের পাশাপাশি খাদ্যবহির্ভূত পণ্যের দাম বেশি বেড়েছে। নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে বিভিন্ন কোম্পানি ইচ্ছামতো দাম বাড়িয়েছে। পণ্যের দাম বেড়ে যাওয়ায় জীবনযাত্রার ব্যয় অনেক গুণ বেড়ে গেছে। এ সময়ে বাড়িভাড়া, পরিবহন, শিক্ষা ও অন্যান্য ব্যয় কয়েকগুণ বেড়েছে। দাম বাড়ার কারণ হিসেবে টিসিবিকে কার্যকর না করা, বাজার নিয়ন্ত্রণে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ না নেয়া, সিন্ডিকেট কারসাজি, পণ্য সরবরাহ কম থাকা, পরিবহন ব্যয় বৃদ্ধিসহ আরেক কয়েকটি কারণকে দায়ী করেছেন সংশ্লিষ্টরা। অথচ ২০০৮ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে ইশতেহারে নিত্যপণ্যের দাম সাধারণ মানুষের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখার প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই নির্বাচনে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা ১০ টাকা কেজি চাল খাওয়ানোর স্লোগান দিয়েছিলেন।
নির্বাচনের ইশতেহারে অগ্রাধিকারভিত্তিক পদক্ষেপ তালিকায় দ্রব্যমূল্য কমিয়ে আনার প্রতিশ্রুতি ছিল প্রথম স্থানে। ইশতেহারের ১.১ অনুচ্ছেদে বলা হয়েছে, ‘দ্রব্যমূল্যের দুঃসহ চাপ প্রশমনের লক্ষ্যে চাল, ডাল, তেলসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম কমিয়ে জনগণের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে স্থিতিশীল রাখার ব্যবস্থা করা হবে। দেশজ উত্পাদন বৃদ্ধিকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিয়ে সময়মতো আমদানির সুবন্দোবস্ত, বাজার পর্যবেক্ষণসহ বহুমুখী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। মজুতদারি ও মুনাফাখোরি সিন্ডিকেট ভেঙে দেয়া হবে, চাঁদাবাজি বন্ধ করা হবে। ‘ভোক্তাদের স্বার্থে ভোগ্যপণ্য মূল্য নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ’ গড়ে তোলা হবে। সর্বোপরি সরবরাহ ও চাহিদার ভারসাম্য সৃষ্টি করে দ্রব্যমূল্য কমানো হবে ও স্থিতিশীলতা প্রতিষ্ঠা করা হবে।’
সরকারের চার বছর মেয়াদের শেষে এসে দেখা যাচ্ছে, খাদ্যদ্রব্যের দাম বাড়ায় জনজীবনে নাভিশ্বাস উঠেছে। জীবনধারণের জন্য যেটুকু প্রয়োজন, তা মেটাতে তারা হিমশিম খাচ্ছেন। বিলাসী সামগ্রীর ব্যবহার প্রায় ভুলতে বসেছেন। আয়ের সঙ্গে ভারসাম্য রাখতে গিয়ে নিত্য কাটছাঁট করতে হচ্ছে খাদ্যতালিকা। যদিও সরকারের মন্ত্রীরা বিভিন্ন সময়ে বলেছেন, দেশের মানুষ ভালো আছে, দিনে চার-পাঁচ বেলা খাচ্ছে। অপরদিকে জাতীয় সংসদে কয়েকটি পণ্যের দাম বেড়ে দ্বিগুণ হওয়ার তথ্য দিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী।
এদিকে দ্রব্যমূল্য বেড়ে যাওয়ায় মূল্যস্ফীতিও বেড়েছে। মহাজোট সরকারের চার বছরে মূল্যস্ফীতির হার প্রায়ই ওঠা-নামা করেছে। আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের মাস। ২০০৯ সালের জানুয়ারি মাসে দেশে মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৬ দশমিক শূন্য ৬ শতাংশ। বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর তথ্য অনুযায়ী ২০০৯-১০ অর্থবছরে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার ছিল ৬ দশমিক ৮২ শতাংশ। ২০১০-১১ অর্থবছরে সার্বিক মূল্যস্ফীতির হার বেড়ে দাঁড়ায় ১০ দশমিক ৯১ শতাংশ ও ২০১১-১২ অর্থবছরে তা ছিল ৮ দশমিক ৬৯ শতাংশ। চলতি অর্থবছরের নভেম্বরে মূল্যস্ফীতির হার ৬ দশমিক ৫৫ শতাংশ।
বাজার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, বিগত ২০ বছরের মধ্যে ড. ফখরুদ্দীন আহমদের জরুরি সরকারের শাসনামলে (২০০৭-২০০৮) খাদ্যদ্রব্যের দাম খুব বেড়ে গিয়েছিল। সাধারণ মানুষ আশা করেছিল, নির্বাচিত সরকারের আমলে নিত্যপণ্যের দাম কমে আসবে। কিন্তু বাস্তবে তার উল্টো ঘটনা ঘটেছে। আওয়ামী লীগের চার বছরে চালের দাম কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও চিনি, পেঁয়াজসহ কয়েকটি পণ্যের দাম অস্বাভাবিক হারে বেড়েছিল। বাজারে কয়েক দফায় চিনি ও তেলের সঙ্কটের পর দাম বেড়ে গিয়েছিল। পরে বাজারে সরবরাহ স্বাভাবিক হলেও দাম তেমন একটা কমেনি। বরং ব্যবসায়ীদের দাবি অনুযায়ী সরকার নতিস্বীকার করে চিনি ও তেলের দাম দফায় দফায় বাড়িয়ে দিয়েছে। খাদ্য অধিদফতর ভর্তুকির চাল ও আটা ওএমএসের মাধ্যমে কম দামে বিক্রি করে বাজার নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয়েছে। আলোচিত-সমালোচিত ফারুক খানকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় থেকে সরিয়ে দেয়া হলেও খাদ্যদ্রব্যের দাম কমতে দেখা যায়নি, বরং বিভিন্ন অজুহাতে জিনিসপত্রের দাম বাড়ছে।
তুলনামূলক দাম : গত ২৮ অক্টোবরের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়লাভের পর ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি সরকার গঠন করে আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন মহাজোট সরকার। বাংলাদেশ ট্রেডিং করপোরেশনের (টিসিবি) ওয়েবসাইটে প্রকাশিত তথ্যে দেখা গেছে, প্রায় সবক’টি পণ্যের দাম বেড়েছে। কোনো কোনো পণ্যের দাম দ্বিগুণ থেকে তিন গুণ পর্যন্ত বেড়েছে। টিসিবির প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী আওয়ামী লীগ সরকার গঠনের দিন ২০০৯ সালের ৬ জানুয়ারি এক হালি মুরগির ডিমের দাম ছিল ২৩ থেকে ২৫ টাকা। চার বছরের ব্যবধানে একই ডিমের দাম বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকা। অর্থাত্ প্রতি হালিতে ডিমের দাম বেড়েছে ১৫ টাকা। একইভাবে ১৪-২০ টাকার লবণ বিক্রি হচ্ছে ১৮-৩০ টাকায়, অর্থাত্ প্রতি কেজি লবণে ৪-১০ টাকা বেড়েছে। ২৩-২৫ টাকার খোলা আটার দাম চার বছরের ব্যবধানে ৩৫-৩৬ টাকা, ৩২-৩৮ টাকার ময়দা বেড়ে ৪২-৪৮ টাকা, খোলা সয়াবিন ৮৮-৯৪ টাকা থেকে বেড়ে ১১০-১১২ টাকা এবং মানভেদে ৭৬ থেকে ১০৫ টাকার মসুর ডালের দাম বেড়ে ১৪২ টাকায় পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। দেশি পেঁয়াজ ৭০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। ২০০৯ সালে অন্যান্য পণ্যের মধ্যে প্রতি কেজি ভালো মানের নাজির/মিনিকেট ৩৩-৩৮ টাকা, সাধারণ মানের নাজির/মিনিকেট ৩৩-৩৮, ভালো মানের পাইজাম/লতা চাল ৩৩-৩৪ ও সাধারণ মানের পাইজাম/লতা চাল ৩২-৩৩, মোটা চাল স্বর্ণা/চায়না ২৯-২৯, মসুর ডাল ৭৬-১০৫, ছোলা ৩৫-৪০, পেঁয়াজ ৩০-৩৬, রসুন ২৪-৩২, শুকনা মরিচ ৯০-১১০, হলুদ ৯৫-১১০, গরুর মাংস ২১০-২২০ ও খাসির মাংস ৩২০-৩৪০ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে।
সরকারের চার বছর পূর্তি উপলক্ষে রাজধানীর খুচরা বাজারগুলো ঘুরে দেখা গেছে, সব পণ্য বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। কারওয়ানবাজারে তুলনামূলক কম দামে পণ্য বিক্রি হয়। পাশাপাশি পাইকারি ও খুচরা বাজার থাকায় এখানে কম দামে পণ্য বিক্রি করতে পারেন ব্যবসায়ীরা। কারওয়ান বাজারের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে আলাপ করে জানা গেছে, আওয়ামী লীগ শাসনামলের চার বছরেই খাদ্যদ্রব্যের দাম বেড়েছে। টিসিবি তথ্য অনুযায়ী, গতকাল এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল ১৩০-১৩৫ টাকা, খোলা সয়াবিন তেল ১১০-১১২, খোলা পাম তেল ৭২-৭৪, ভালো মানের নাজিরশাইল ৪৬-৪৮, সাধারণ মানের নাজিরশাইল ৩৪-৪৫ ও মোটা চাল স্বর্ণা ৩২-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। অন্যান্য পণ্যও বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে। খোলা আটা ৩৫-৪০ টাকা, প্যাকেটজাত আটা ৩৮-৪০, খোলা ময়দা ৪২-৪৪, প্যাকেটজাত ময়দা ৪৬-৪৮, চিনি ৫০, ভালো মানের মসুর ডাল ১৩৮-১৪০, মুগ ডাল ১০০-১১৫ ও দেশি পেঁয়াজ ৪০-৪৫ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। টিসিবির প্রকাশিত তথ্য অনুযায়ী গত এক সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগির দাম ১৫ টাকা বেড়ে ১৫০-১৫৫ টাকা, আদা (মানভেদে) ১০ টাকা বেড়ে ৬০-৭০, ডিম ২ টাকা বেড়ে ৩৮-৪০, খোলা আটা ২ টাকা বেড়ে ৩৫-৩৬, প্যাকেট আটা ২ টাকা বেড়ে ৩৮-৪০ ও আলু ৩ টাকা বেড়ে ২৮-৩০ টাকা হয়েছে।
বিএনপি ও আ’লীগের শাসনামলে তুলনামূলক বাজারদর : বিএনপি শাসনামলের শেষ বছর ২০০৬ সাল ও আওয়ামী লীগ সরকারের গতকালের টিসিবির প্রকাশিত তথ্য ও বাজার দর পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, প্রতিটি পণ্যের দাম বেড়েছে। বিএনপি সরকারের শেষ সময়ে মোটা চালের কেজি ছিল ১৭ টাকা। সেই চাল শত ভাগ দাম বেড়ে এখন ৩০-৩২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। একইভাবে ২৪ টাকার নাজিরশাইল বেড়ে গতকাল ৪৬-৪৮ টাকা দরে বিক্রি হয়ে। বিএনপি ক্ষমতা ছাড়ার সময় চিনির কেজি ছিল ৩৭ টাকা। বর্তমান তা বিক্রি হচ্ছে ৫২-৫৮ টাকায়। এর আগে চিনি ৬৫-৬৮ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে। বিএনপি খোলা সয়াবিন তেল ৪৮ টাকা রেখে গিয়েছিল। বর্তমানে প্রায় তিন গুণ বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ১৩০-১৩৫ টাকা। একইভাবে ১৮ টাকা কেজির আটা দ্বিগুণ বেড়ে ৩৫-৪০ টাকা ও আমদানি করা নেপালি মসুর ডাল ৪৫ টাকার পরিবর্তে তিন গুণের বেশি বেড়ে ১৪০-১৪২ টাকা দরে বিক্রি করতে দেখা গেছে। বিএনপির আমলে আমদানি করা প্রতি কেজি রসুন বিক্রি হতো ২০ টাকায়। গতকাল তা বিক্রি হয়েছে ৭০-৮০ টাকা। একইভাবে অন্যান্য পণ্যের দামও বেড়েছে।
দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ার নেপথ্যে : দ্রব্যমূল্যের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে অর্থনীতিবিদরা বাজার নিয়ন্ত্রণে সরকারের চরম ব্যর্থতা, সিন্ডিকেট, দুর্নীতি, অনিয়ম, ভ্রান্ত নীতি অবলম্বন, যথাযথ বাজার মনিটরিং না করা, সরকারি দলের মন্ত্রী, এমপি ও নেতারা সরাসরি ব্যবসা করায় তাদের ওপর সরকারের হস্তক্ষেপ করতে ব্যর্থ হওয়া, জ্বালানি তেল ও বিদ্যুতের দাম বৃদ্ধি, পরিবহন খরচ বৃদ্ধিসহ বেশকিছু কারণে দ্রব্যমূল্য বেড়েছে বলে মনে করছেন বাজারসংশ্লিষ্ট অর্থনীতিবিদরা। তাদের মতে, বাজার তদারকে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বারবার ব্যর্থতার পরিচয় দিয়েছে। সাবেক বাণিজমন্ত্রী ফারুক খান বাজার তদারকে নিজেই বাজারে গেলেও তাতে কাজ হয়নি। সরকারের তিন বছরে সয়াবিন তেলের বাজার ছিল সব সময়ই অস্থির। আটা-ময়দার দর ছিল নিয়ন্ত্রণহীন, বাজার থেকে উধাও হয়ে যায় চিনি, চালের বাজারও ছিল চড়া। সরকার ক্ষমতা নেয়ার ছয় মাসের মাথায় কাঁচামরিচের কেজি ২০০ থেকে ২২০ টাকায় দাঁড়ায়। বর্তমানে প্রতি লিটার সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৩০ থেকে ১৩৫ টাকা। গত রোজার ঈদের আগে বাজারে কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছিল। তখন প্রতি কেজি ছোলা ১০০ টাকার ওপরে বিক্রি হয়। বিভিন্ন জাতীয় ও ধর্মীয় উত্সবে বাজার চলে গেছে সিন্ডিকেটের কবলে। লাফিয়ে লাফিয়ে বেড়েছে নিত্যপণ্যের দাম। অর্থমন্ত্রী এ এম এ মুহিত ২০১০ সালের আগস্টে একটি বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেছেন, দায়িত্ব নেয়ার পর আমি সিন্ডিকেট ভাঙার ঘোষণা দিয়েছিলাম। কিন্তু আজ দুঃখের সঙ্গে বলছি, সিন্ডিকেট আমরা ভাঙতে পারিনি। সিন্ডিকেট ভাঙা কঠিন। আসলে সংসদীয় গণতন্ত্রে সমস্যা এখানেই। বিত্তশালীরা সরকারের ভেতরে ঢুকে প্রভাব বিস্তার করে।
দাম বাড়ার কারণ বলতে গিয়ে ক্যাবের সভাপতি কাজী ফারুক আমার দেশকে বলেন, দ্রব্যমূল্য স্থিতিশীল রাখতে যে ধরনের পদক্ষেপ নেয়া দরকার, তা নিতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। বাজার নিয়ন্ত্রণ করছে সিন্ডিকেট। বর্তমান মহাজোট সরকারের দুই-তৃতীয়াংশ সংসদ সদস্য কোনো না কোনোভাবে ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। দাম বাড়ার নেপথ্যে এসব সংসদ সদস্যদেরও ভূমিকা থাকার সম্ভাবনা প্রবল। এছাড়া একশ্রেণীর ব্যবসায়ী ভোক্তাদের জিম্মি করে রেখেছে। তাদের অতি মুনাফা করার প্রবণতা বাজারকে অস্থির করে তুলেছে। সরকার তাদের বিরুদ্ধে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে পারেনি। তিনি দুর্বৃত্ত ব্যবসায়ীদের মনিটরিং করে শাস্তির আওতায় আনার পরামর্শ দেন।
টিসিবির ব্যর্থতা : বাজার নিয়ন্ত্রণে রাখতে সরকারের বড় হাতিয়ার টিসিবি। সিন্ডিকেট ভাঙা ও পণ্যের কৃত্রিম সঙ্কটে টিসিবি বড় ভূমিকা রাখে। অথচ সিন্ডিকেটের কবলে পড়েছে টিসিবি। পণ্য আমদানি, ডিলার নিয়োগসহ সবকিছু দলীয় নেতাকর্মীদের হাতে জিম্মি। ফলে নিত্যপণ্যের দাম বাড়লেও টিসিবি নিষ্ক্র্রিয় ছিল। সরকারের তরফ থেকে টিসিবিকে শক্তিশালী করার কথা বললেও বাস্তবে তা হয়নি। বিশেষ করে রোজার সময় টিসিবি নিয়ে অনেক আশাবাদ প্রকাশ করলেও কার্যত বাজারে প্রতিষ্ঠানটির কোনো প্রভাব নেই। ভোজ্যতেল, চিনি ও ডালের মতো কিছু পণ্য স্থানীয় বাজার থেকে সংগ্রহ করলেও তা ছিল প্রয়োজনের তুলনায় সামান্য। দুই থেকে সর্বোচ্চ সাত দিনের চাহিদা মেটানোর মতো পণ্য বাজারে কোনো প্রভাবই ফেলতে পারেনি।