Amardesh
আজঃঢাকা, রোববার ৬ জানুয়ারি ২০১৩, ২৩ পৌষ ১৪১৯, ২৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

 জোয়ান অব অর্ক

পরাধীন ফ্রান্সের ত্রাতা, বীরাঙ্গনা জোয়ান অব অর্ক ১৪১২ খ্রিস্টাব্দের ৬ জানুয়ারি ফ্রান্সের রুয়েনে এক কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ইংরেজদের বিরুদ্ধে শতবর্ষব্যাপী যুদ্ধে তিনি ফ্রান্সের সেনাবাহিনীকে নেতৃত্ব দেন। মিউজ নদীর তীরে দমারমি গ্রামে তার জন্ম। ফ্রান্স তখন ইংরেজ শাসনাধীন ছিল। ইংল্যান্ডের রাজা ৫ম হেনরির ছেলে ৬ষ্ঠ হেনরি ফ্রান্সের সিংহাসনে আরোহণ করলে সপ্তম চার্লস পালিয়ে যান। জোয়ান লেখাপড়া জানতেন না। কিংবদন্তি রয়েছে, মাঠে ভেড়ার পাল চড়ানোর সময় তিনি দৈবাদিষ্ট হন মাতৃভূমির স্বাধীনতা পুনরুদ্ধার ও ফ্রান্সের প্রকৃত রাজাকে পুনর্বহালে ভূমিকা নিতে। এ দৈববাণী তার জীবন আমূল পাল্টে দেয়। এসময় সবে কৈশোরে পা দিয়েছেন তিনি।
অনেক চেষ্টা করে জোয়ান পলাতক রাজা সপ্তম চার্লসের সঙ্গে দেখা করেন এবং অভিযানের জন্য সৈন্য প্রার্থনা করেন। সাদা পোশাক পরে সাদা ঘোড়ায় চড়ে পঞ্চক্রুশধারী তরবারি হাতে জোয়ান ৪০০০ সৈন্য নিয়ে ১৪২৯ খ্রিস্টাব্দের ২৮ এপ্রিল অবরুদ্ধ নগরী অরলিন্সে প্রবেশ করেন। প্রথম আক্রমণেই সাফল্য ধরা দেয় জোয়ানের হাতে। ধারাবাহিক সাফল্যের মাধ্যমে ইংরেজ সৈন্যদের হাত থেকে তুরেল বুরুজ উদ্ধার করেন জোয়ান। পাতের যুদ্ধেও ইংরেজরা হেরে যায়। সে বছরের জুনে জোয়ান সেনাবাহিনী নিয়ে শত্রুব্যূহ ভেদ করে রীই নগরী অধিকার করেন। এভাবেই ১৬ জুলাই ৭ম চার্লস ফ্রান্সের রাজা হিসেবে পুনঃঅধিষ্ঠিত হন। ফ্রান্সের স্বাধীনতার পর ইংরেজরা জোয়ানকে জব্দ করার ফন্দি আঁটতে থাকে। কম্পিয়্যান শহরের বাইরে শত্রু সৈন্যদের ওপর আক্রমণকালে ফ্রান্সের রাজনৈতিক দল বার্গেন্ডি কর্মীদের বিশ্বাসঘাতকতার ফলে ইংরেজরা জোয়ানকে আটক করতে সক্ষম হয়। এরপর এক ইংরেজ পাদ্রীর অধীনে তার বিচার কাজ চলতে থাকে। বিচারে তার কার্যকলাপ ধর্মবিরোধী আখ্যা দিয়ে তাকে ডাইনি সাব্যস্ত করা হয়। বিচারের রায়ে ১৪৩১ খ্রিস্টাব্দের ৩০ মে তাকে পুড়িয়ে মারা হয়। তার নির্মম হত্যাকাণ্ডের পর ফরাসিরা চিরতরে ইংরেজদের সব অধিকার ও চিহ্ন মুছে দেয়ার প্রয়াস পায়।
—ইমরান রহমান

  • ফিরে দেখা