Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ ডিসেম্বর ২০১২, ১৩ পৌষ ১৪১৯, ১৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

মন্ত্রীর ভাগ্নের টেন্ডার ছিনতাই : রাজউকের ২৫ কোটি টাকার সেই টেন্ডার বাতিল

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
মন্ত্রীর ভাগ্নের নেতৃত্বে টেন্ডার ছিনতাইয়ের ঘটনায় সেই ২৫ কোটি টাকার টেন্ডার বাতিল করেছে রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ (রাজউক)। পুনঃদরপত্রের জন্যও নোটিশ দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজউক। একই সঙ্গে ছিনতাইয়ের ঘটনায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালয় রাজউকের উচ্চপর্যায়ের কর্মকর্তাদের নিয়ে ২ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজউক সূত্র। এখনও পর্যন্ত রাজউকে খোলা জিপ বাহিনীর আতঙ্কে রয়েছেন সবাই। গত সোমবার রাজউক ভবনে র্যাব-পুলিশের সামনেই প্রকাশ্যে মন্ত্রীর ভাগ্নের নেতৃত্বে ২৫ কোটি টাকার টেন্ডার ডকুমেন্টস ছিনতাইয়ের ঘটনা ঘটে। এ সংবাদ দৈনিক আমার দেশ পত্রিকাসহ কয়েকটি পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশিত হলে টনক নড়ে কর্তৃপক্ষের। এর আগে রাজউক চেয়ারম্যানসহ কর্মকর্তারা বিষয়টি জানেন না বা শোনেননি বলে এড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। ওই ঘটনা ধামাচাপা দেয়ার জন্য কর্তৃপক্ষ বোর্ড মিটিংসহ একাধিক মিটিংয়ের আয়োজন করেন। পরবর্তীতে গণমাধ্যমে বিষয়গুলো ফাঁস হয়ে গেলে ওই টেন্ডার বাতিলের সিদ্ধান্ত নেয় রাজউক। তবে এসব ব্যাপারে রাজউকের প্রধান প্রকৌশলী মো. এমদাদুল ইসলাম দৈনিক আমার দেশকে বলেন, ‘পত্র-পত্রিকায় টেন্ডার ছিনতাইয়ের সংবাদ দেখে বাতিল করা হয়েছে। একই সঙ্গে গতকাল পুনঃদরপত্রের জন্য নোটিশও দেয়া হয়েছে। তবে অভিযোগকারী আবদুল মোনেম লিমিটেডের কাছ থেকে এখনও পর্যন্ত কোনো লিখিত অভিযোগ পাইনি।’ আবদুল মোনেম লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক এমএ কালাম দৈনিক আমার দেশকে বলেন, ‘সোমবার বিকাল সাড়ে ৪টায় প্রকল্প পরিচালকের কাছে ই-মেইল করে এবং রাজউক চেয়ারম্যানের ফ্যাক্স নম্বরে ফ্যাক্স করে অভিযোগ পাঠানো হয়েছে।’
উল্লেখ্য, গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী আবদুল মান্নান খানের ভাগ্নে আবদুস সালাম খানের নেতৃত্বে প্রকাশ্যে রাজউকের ২৫ কোটি টাকার টেন্ডার ছিনতাইয়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে। র্যাব-পুলিশের সামনেই গতকাল সকালে রাজধানীর মতিঝিলে রাজউক ভবনে এ ঘটনা ঘটে। টেন্ডার ছিনতাইয়ের ঘটনায় ঘটনাস্থলে উপস্থিত থাকা সরকারদলীয় বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠন, যুবলীগ ও শ্রমিক লীগের ঠিকাদারসহ সাধারণ ঠিকাদাররা সাংবাদিকদের কাছে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন।
দরপত্র জমা দিতে গিয়ে ছিনতাইয়ের শিকার হওয়া আবদুল মোনেম লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক এমএ কালাম বলেন, ‘যখন জোর করে আমাদের ছেলেদের হাত থেকে টেন্ডার ডকুমেন্টস নিয়ে যায় তখন র্যাব-পুলিশ সবাই ছিল, কিন্তু কেউ এগিয়ে আসেনি। পরে যখন প্রকল্প পরিচালকের কাছে গেলাম, তখন প্রকল্প পরিচালকের কথায় পুলিশ তত্পরতা দেখাতে শুরু করল এবং বিভিন্ন ভবনে ও রাস্তায় লোক দেখানো দৌড়ঝাঁপ শুরু করে।’ তবে পুনঃদরপত্র আহ্বানে র্যাব-পুলিশের নিরপেক্ষ ভূমিকা এবং স্বচ্ছতা আশা করেছে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানগুলো।