Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ ডিসেম্বর ২০১২, ১৩ পৌষ ১৪১৯, ১৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

তুরস্কের রাষ্ট্রদূতকে তলব

কূটনৈতিক রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
‘অন অ্যারাইভাল ভিসা’ নিয়ে বাংলাদেশে এসে তুরস্কের একটি এনজিও প্রতিনিধি দল চলমান যুদ্ধাপরাধের বিচার প্রক্রিয়ায় আসামিদের পক্ষে দূতিয়ালি করেছে বলে সরকারের পক্ষ থেকে অভিযোগ উঠেছে। এ ব্যাপারে গতকাল ঢাকায় নিযুক্ত তুরস্কের রাষ্ট্রদূত মেহমুত ভারকুল ইরকুলকে পররাষ্ট্র
মন্ত্রণালয়ে তলব করে সরকারের অসন্তোষের কথা জানিয়ে দেয়া হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব মুস্তাফা কামাল তার কাছে সরকারের অসন্তোষের বিষয়টি তুলে ধরেন।
পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে, গতকাল তুরস্কের রাষ্ট্রদূতের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে ভারপ্রাপ্ত পররাষ্ট্র সচিব কথা বলেন। এ সময় তিনি তার কাছে এটিও জানতে চান, তুরস্কের এনজিও ক্যানসুয়ু এইড অ্যান্ড সলিডারিটি অ্যাসোসিয়েশনের ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল ঢাকায় আসার দিন অর্থাত্ গত ২০ ডিসেম্বরই বিষয়টি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে কেন জানানো হয়। তাদের আসার আগে বিষয়টি বাংলাদেশ সরকারকে জানানো হলে সরকার বিষয়টি সম্পর্কে অবহিত থাকতে পারত। এ সময় তুরস্কের রাষ্ট্রদূত জানান, তিনি ওইদিন অর্থাত্ ২০ ডিসেম্বর আঙ্কারা থেকে তাদের বাংলাদেশ সফরের বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশকে জানানোর নির্দেশনা পান।
এদিকে তুরস্কের রাষ্ট্রদূত গতকাল এটা বোঝাতে চেয়েছেন, তুরস্কের প্রতিনিধি দলটি গত ২০ থেকে ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা সফরের সময় যুদ্ধাপরাধের বিচারের ব্যাপারে কোনো রকমের দূতিয়ালি করতে আসেনি; বরং বিষয়টি সম্পর্কে আরও ভালোভাবে জানতে প্রতিনিধি দলটি বাংলাদেশ সফর করেছে।
তবে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে গতকাল সুস্পষ্টভাবেই জানানো হয়েছে, প্রতিনিধি দলটি যেভাবে বাংলাদেশে এসেছে এবং এ সফরের সময় দলটি যেসব কর্মকাণ্ড করেছে, তাতে সরকার উদ্বিগ্ন। কারণ ‘অন অ্যারাইভাল ভিসা’র অপব্যবহার করে তুরস্কের প্রতিনিধি দলটি সঠিক কাজ করেনি। তাছাড়া কোনো বিষয়ে বিভ্রান্তি কিংবা সমস্যা তৈরি করা কোনো বন্ধুপ্রতিম রাষ্ট্রের কাজ নয় বলে বাংলাদেশ মনে করে। এ প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ আশা করে, আগামীতে এ ধরনের কিছু ঘটবে না। বাংলাদেশের এ অবস্থান তার সরকারের কাছে জানাতে তুর্কি রাষ্ট্রদূতকে বলা হয়েছে। আর বাংলাদেশ সরকারের অবস্থান উল্লেখ করে গতকাল মেহমুত ভারকুল ইরকুলকে একটি কূটনৈতিক পত্র (এইড মেমোয়ার) দেয়া হয়েছে।
তুরস্কের এনজিও ক্যানসুয়ু এইড অ্যান্ড সলিডারিটি অ্যাসোসিয়েশনের ১৪ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল গত ২০ থেকে ২৪ ডিসেম্বর ঢাকা সফর করে। প্রতিনিধি দলে ছিলেন সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ ও আইনজীবী। এদের মধ্যে ছিলেন তুরস্কের ক্ষমতাসীন জাস্টিস অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট এ কে পার্টি ও ডানপন্থী দল সাদেত পার্টির প্রতিনিধি।
বাংলাদেশ সফরের সময় তুরস্কের প্রতিনিধি দলটি যুদ্ধাপরাধের বিচার পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি আইনমন্ত্রী শফিক আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর পররাষ্ট্র বিষয়ক উপদেষ্টা গওহর রিজভী, সুপ্রিমকোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি জয়নুল আবেদীন, আন্তর্জাতিক অপরাধ আদালতের প্রধান কৌঁসুলি গোলাম আরিফ টিপু, আসামিপক্ষের আইনজীবী ব্যারিস্টার আবদুর রাজ্জাক, আইন ও সালিশ কেন্দ্রের নির্বাহী পরিচালক সুলতানা কামালের সঙ্গে বৈঠক করেছে।