Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ ডিসেম্বর ২০১২, ১৩ পৌষ ১৪১৯, ১৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

আমানকে গ্রেফতার বা হয়রানি না করার নির্দেশ : বিএনপি নেতা নাজিম উদ্দিন আলম ও ডা. শাহাদাতের আগাম জামিন

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
পৃথক ঘটনায় গাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের একই অভিযোগে দায়ের করা দুটি মামলায় আগাম জামিন পেয়েছেন বিএনপির আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক নাজিম উদ্দিন আলম ও চট্টগ্রাম নগর বিএনপি সাধারণ সম্পাদক ডা. শাহাদাত হোসেন। গতকাল তারা আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন। শুনানি শেষে বিচারপতি মো. রেজাউল হক ও কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্টের অবকাশকালীন বেঞ্চ নাজিম উদ্দিন আলমকে দু’সপ্তাহ এবং ডা. শাহাদাত হোসেনকে ৩১ ডিসেম্বর পর্যন্ত আগাম জামিন দেন। আদালত একইসঙ্গে একই অভিযোগে দায়ের করা অপর এক মামলায় সুপ্রিমকোর্টের অবকাশ শেষ হওয়া পর্যন্ত বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব আমান উল্লাহ আমানকে গ্রেফতার বা হয়রানি না করতে নির্দেশ দিয়েছে। এরা সবাই হাইকোর্টে হাজির হয়ে আগাম জামিনের আবেদন জানান। এর মধ্যে নাজিম উদ্দিন আলম স্কয়ার হাসপাতালের অ্যাম্বুলেন্সে শুয়ে হাইকোর্টে আসেন। জামিন নিয়ে আবার অ্যাম্বুলেন্সেই তিনি আদালত এলাকা ত্যাগ করেন।
আদালতে আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। তার সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম সজল ও ব্যারিস্টার শাকিলা ফারজানা।
রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল এএসএম নাজমুল হক।
প্রসঙ্গত, ৯ ডিসেম্বর অবরোধের দিন রাজধানীর গাবতলী এলাকায় গাড়ি ভাঙচুর করে একদল। এ ঘটনায় ওইদিন রাতে পুলিশ আমান উল্লাহ আমানসহ বিএনপি নেতাকর্মীদের আসামি করে সাভার থানায় মামলা দায়ের করে।
একইদিন সাভার এলাকায় বিএনপি নেতাকর্মীরা অবরোধের সমর্থনে মিছিল বের করলে পুলিশ তাতে সশস্ত্র হামলা চালায়। সেদিন ঢাকসুর সাবেক ভিপি নাজিম উদ্দিন আলম পুলিশের গুলিতে গুলিবিদ্ধ হয়ে আহত হন। ওই ঘটনায় পুলিশ উল্টো বিএনপি নেতাকর্মীদের আসামি করে মামলা দায়ের করে। গতকাল অ্যাম্বুলেন্সে করে আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন নাজিম উদ্দিন আলম। ৯ ডিসেম্বর গুলিবিদ্ধ হওয়ার পর থেকে তিনি স্কয়ার হাসপাতালে চিকিত্সাধীন।
এদিকে ৯ ডিসেম্বর অবরোধের সমর্থনে চট্টগ্রাম নগরীর কাজির দেউড়ি এলাকায় মিছিল বের করেন বিএনপি ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। পুলিশ মিছিলে বাধা দিলে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই রাতেই ডা. শাহাদাত হোসেনসহ ৬৪ নেতাকর্মীর বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করে কোতোয়ালি থানা পুলিশ।