Amardesh
আজঃঢাকা, বৃহস্পতিবার ২৭ ডিসেম্বর ২০১২, ১৩ পৌষ ১৪১৯, ১৩ সফর ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

ভাটিয়ারীতে সেনা ক্যাডেটদের প্রতি প্রধানমন্ত্রী : মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণ এবং স্বাধীনতা বিরোধীদের ব্যাপারে সজাগ থাকতে হবে

বাসস, চট্টগ্রাম
পরের সংবাদ»
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে ধারণ এবং দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব বিরোধীদের ব্যাপারে সবসময় সজাগ থাকতে বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর ভবিষ্যত্ নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন। তিনি বলেন, দেশের স্বাধীনতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষা করা তোমাদের পবিত্র দায়িত্ব। তাই তোমাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে সবসময় ধারণ এবং দেশের স্বাধীনতাবিরোধীদের অপকর্মের ব্যাপারে সর্বদা সজাগ থাকতে হবে। তিনি গতকাল ভাটিয়ারীতে ৬৭তম বিএমএ লং কোর্স এবং ৩৮তম বিএমএ স্পেশাল কোর্সের ক্যাডেটদের কমিশনপ্রাপ্তি উপলক্ষে রাষ্ট্রপতি প্যারেড অনুষ্ঠানে বক্তৃতাকালে এ কথা বলেন।
একটি চৌকস, দক্ষ ও আধুনিক সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে তার সরকারের অঙ্গীকারের কথা পুনর্ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশসেবার মহান ব্রত নিয়ে তোমরা বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে যোগদান করেছ। তিনি বলেন, চৌকস, আত্মবিশ্বাসী ও দায়িত্বশীল অফিসার হিসেবে তোমরা আজ বৃহত্তর কর্মজীবনে প্রবেশ করতে যাচ্ছ এবং কর্মজীবনে তোমাদের মনে রাখতে হবে, তোমরা এদেশের জনগণেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ।
আমি আশা করি, তোমরা সবাই জনগণের সুখ-দুঃখ, হাসি-কান্নার সমান অংশীদার হবে।
সেনাবাহিনীর নতুন ক্যাডেটরা সর্বদা নিঃস্বার্থভাবে দায়িত্ব পালন এবং দেশ ও জনগণের সেবায় আত্মনিয়োগ করবে বলেও তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
মন্ত্রী, প্রধানমন্ত্রীর উপদেষ্টা, তিন বাহিনীর প্রধান, ঊর্ধ্বতন সামরিক ও বেসামরিক কর্মকর্তা, কূটনীতিক এবং নতুন কমিশন পাওয়া ক্যাডেটদের অভিভাবকরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এর আগে প্রধানমন্ত্রী বিএমএ প্যারেড গ্রাউন্ডে এসে পৌঁছলে সেনাবাহিনী প্রধান জেনারেল ইকবাল করিম ভূইয়া, আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিনের জিওসি মেজর জেনারেল একেএম মুজাহিদ উদ্দিন, চট্টগ্রামের এরিয়া কমান্ডার ও ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি মেজর জেনারেল সাব্বির আহমেদ এবং বিএমএ কমান্ড্যান্ট ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মো. শামসুজ্জামান তাকে স্বাগত জানান।
প্রধানমন্ত্রী কুচকাওয়াজ পরিদর্শন করেন এবং সালাম গ্রহণ করেন। তিনি সেরা ক্যাডেটদের মাঝেও পুরস্কার বিতরণ করেন।
এ বছর ১০ ফিলিস্তিনীসহ মোট ৮৫ জন ক্যাডেট কমিশন লাভ করেছে। প্রশিক্ষণে সব বিষয়ে শ্রেষ্ঠত্ব লাভের জন্য তারিক জুবায়েরকে ‘সোর্ড অব অনার’ দেয়া হয় এবং সামরিক বিষয়ে অসামান্য কৃতিত্ব অর্জনের জন্য হাবিবুল্লাহ খান সেনাবাহিনী প্রধান স্বর্ণপদক লাভ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, স্বাধীনতাবিরোধী চক্র আমাদের কষ্টার্জিত স্বাধীনতা ভূলণ্ঠিত করার অপচেষ্টায় লিপ্ত রয়েছে। তিনি বলেন, পরাজিত শক্তি সবসময় বিজয়ীদের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করে থাকে। তাই আমি সবাইকে আমাদের মহান বিজয় ভূলণ্ঠিত করার স্বাধীনতাবিরোধীদের যে কোনো অপচেষ্টার বিরুদ্ধে সদা সজাগ থাকার আহ্বান জানাচ্ছি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশ যে এখন একটি প্রগতিশীল, অসাম্প্রদায়িক, উন্নয়নমুখী ও শান্তিপ্রিয় দেশ তা জাতীয় ও আন্তর্জাতিক পর্যায়ে প্রমাণিত হয়েছে। তিনি বলেন, জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে সর্বাধিক শান্তিরক্ষী প্রেরণের মাধ্যমে বাংলাদেশ বিশ্বশান্তি রক্ষায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। তিনি বলেন, তার সরকার দেশ থেকে সন্ত্রাসবাদ ও জঙ্গিবাদ নির্মূলের মাধ্যমে দেশকে ‘সন্ত্রাসবাদী’ রাষ্ট্রের অপবাদমুক্ত করেছে।
তিনি বলেন, সেনা সদস্যরা জনগণের কল্যাণ ও দেশের উন্নয়ন জোরদার করতে বর্তমান সরকারের গৃহীত বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প বাস্তবায়নেও দক্ষতার সঙ্গে কাজ করছে। অর্থনীতি, কৃষি, শিক্ষা, স্বাস্থ্য, সড়ক, রেল ও নৌ যোগাযোগ, গ্যাস-বিদ্যুত্ উত্পাদন প্রতিটি খাতে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের মানুষ এখন সুখে-শান্তিতে আছে। কিন্তু একটি গোষ্ঠীর তা সহ্য হচ্ছে না। তাই জনগণের শান্তি বিঘ্নিত করতে তারা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছে।
চট্টগ্রামে গার্ডার ধসে নিহতদের পরিবারকে চেক হস্তান্তর : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নগরীর বহদ্দারহাটে ফ্লাইওভারের গার্ডার ধসে নিহতদের প্রতি পরিবারকে ২ লাখ টাকার চেক হস্তান্তর করেছেন। প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল থেকে ওই অর্থ দেয়া হয়। বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি মেসে এক অনাড়ম্বর অনুষ্ঠানে নিহত ৯ ব্যক্তির পরিবারের কাছে প্রধানমন্ত্রী ওই চেক হস্তান্তর করেন। এ সময় প্রধানমন্ত্রী শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান।
চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় বাংলাদেশ আর্মি একাডেমি ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। ২৪ নভেম্বর নির্মাণাধীন ফ্লাইওভার ধসে মোট ১২ জন নিহত হয়। তবে এদের মধ্যে দুইজনকে এখনও শনাক্ত করা যায়নি।