Amardesh
আজঃঢাকা, রোববার ২৫ নভেম্বর ২০১২, ১১ অগ্রহায়ণ ১৪১৯, ১০ মহররম ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২ টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

যুদ্ধের ময়দানে নারী সাংবাদিক

স্কাই নিউজ
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
আপনি যখন ঘুমিয়ে থাকবেন, আপনি হয়তো বোমায় উড়ে যেতে পারেন। অপহরণের শিকার হতে পারেন। যৌন নির্যাতনের মুখে পড়তে পারেন। মার খেতে পারেন। জেলে যেতে পারেন এবং আপনি হতে পারেন গুলিবিদ্ধ। ঠিক এমনই সাংবাদিকদের জীবন। মানে যারা যুদ্ধ আর সংঘাতের ময়দানে সংবাদ সংগ্রহ করতে জীবন বাজি রেখে ছুটাছুটি করেন তাদের অবস্থা সেখানে কেমন। যেমন ধরুন সম্প্রতি গাজায় ইসরাইলি হামলার ঘটনায় সাংবাদিকদের হালহকিকত। সেখানে একজন নারী সাংবাদিক কি ধরনের ভয়াবহ অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে গেছেন, সেটা কেবল একজন সাংবাদিকই বলতে পারেন। শুধু তাদের সামনে একটি মাত্র বিষয় শুধু চ্যালেঞ্জ, আর চ্যালেঞ্জ। ইসরাইলে রকেট এবং মিসাইলগুলো গত সপ্তাহজুড়ে যেভাবে ধেয়ে আসছিল তাতে কিন্তু শুধু সাধারণ মানুষরাই প্রাণ হারাননি। গণমাধ্যমও ভয়াবহ আক্রান্ত হয়েছে। অনেক সাংবাদিক রিপোর্টারের আবাসস্থল আর বাসভবন ধ্বংস হয়ে গেছে। স্কাই নিউজের মধ্যপ্রাচ্য টিমের একটি ভবন ধ্বংস হয়ে যায়। তারা এমন অবস্থায় ছুটে যান, পালাতে থাকেন। তবু তারা রিপোর্ট সংগ্রহ বন্ধ করেন না। মানুষের ধ্বংসের কথা আর ধ্বংসের দৃশ্য তুলে ধরতে আগুন আর গোলার ভেতর দিয়েই দৌড়াতে থাকেন।
গত সপ্তাহে ইসরাইল-গাজা সংঘাতের রিপোর্ট করতে গিয়ে অন্তত তিনজন সাংবাদিক প্রাণ হারান। একজন সাংবাদিক তার পা হারিয়ে ফেলেছেন। আরেকজন সাংবাদিক সংবাদ সংগ্রহ করে বাড়ি ফিরে দেখেন তার ঘরটি ধ্বংস করে দেয়া হয়েছে। আর তাতে একমাত্র তার শিশু পুত্র ওই ঘরের সঙ্গেই মিশে গেছে।
শুধু পুুরুষই নয়। আমরা দেখেছি অনেক নারী সংঘাত এলাকাগুলোতে রিপোর্টিং করছে। ফোয়েব গ্রিনউড টেলিগ্রাফের করেসপনডেন্ট। গত সপ্তাহে গাজায় নিউজ করতে সংঘাত জোনে ঘুরে এসেছেন। তার প্রত্যক্ষ প্রতিক্রিয়া শুনুন, ‘আমরা তো আর হিরো নই। তবু আমরা এমন অনেক হিরোর মুখোমুখি হই। তাদের মতামত নিই। যে সাংবাদিকরা এমন কাজ ব্রত হিসেবে গ্রহণ করে নেয়, তারা এটা খুব ভালো করেই জানে, এ কাজ কেমন করে নিজেরে ঘুম থেকে বঞ্চিত করে।
তাদের ঘুম কেড়ে নেয়। কত খারাপ পরিস্থিতির মধ্যে তাদের জড়ায়ে ফেলে। এমনকি নিজের পোশাকটুকুও ধোয়ার সামান্য সময়টুকুও পায় না তারা। দীর্ঘ সময় ধরে জরুরি খাবারটুকুরও পাত্তা পাওয়া যায় না। না খেয়ে থাকতে হয় সারাক্ষণ।
একটা মারাত্মক সময়ের সামনে দাঁড় করিয়ে দেয় এ পেশা।’ সিরিয়া, আফগানিস্তান, পাকিস্তান, সুদান, সোমালিয়াসহ যুদ্ধ এলাকাগুলোতে নারী সাংবাদিকদের অবস্থান এবং ভূমিকা যেমন অবিস্মরণীয়, তেমনি অনেক অনেক চ্যালেঞ্জিং।