Amardesh
আজঃঢাকা, শনিবার ২৪ নভেম্বর ২০১২, ১০ অগ্রহায়ণ ১৪১৯, ৯ মহররম ১৪৩৪ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১২.০০টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিক
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

রামুর ঘটনায় প্রশাসনের ব্যর্থতা ছিল : সৈয়দ আশরাফ

স্টাফ রিপোর্টার
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
রামুর বৌদ্ধবিহার ও বসতবাড়িতে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনায় সরকারে ব্যর্থতা ছিল স্বীকার করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রী সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। তিনি বলেন, রামুর ঘটনায় সরকার ও প্রশাসনের কিছু ফেইলিওর (ব্যর্থতা) ছিল। তবে শেখ হাসিনাসহ আমরা তাত্ক্ষণিকভাবে রামু সফরে গেছি। প্রধানমন্ত্রী তাত্ক্ষণিকভাবে প্রশাসনের যেখানে যেমন ব্যবস্থা নেয়া দরকার তাই নিয়েছেন। সরকার বৌদ্ধদের সমাজের সঙ্গে আছে এবং থাকবে। বৌদ্ধরা একা নয়। এদেশের অধিকাংশ মানুষই অসাম্প্রদায়িক। তারা বৌদ্ধদের পক্ষে আছে।
রাজধানীর মেরুল বাড্ডার আন্তর্জাতিক বৌদ্ধবিহারে গতকাল ‘শুভ কঠিন চীবর দান ও বৌদ্ধ ধর্মীয় মহাসম্মেলন ২০১২’-এ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি হুশিয়ারি উচ্চারণ করে বলেন, কোনো ধর্ম ও দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসী ও জঙ্গি কর্মকাণ্ডের জন্য বাংলাদেশের মাটি ব্যবহার করতে দেয়া হবে না।
কোনো রাষ্ট্রের নাম উল্লেখ না করে আশরাফ বলেন, বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্রের একজন রাষ্ট্রদূত কয়েক দিন ধরে ক্যাম্পেইন করে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ সরকার নাকি রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিচ্ছে না। তারা এ নিয়ে আমার সঙ্গে অনেকবার আলোচনা করেছে। আমি স্পষ্ট বলে দিয়েছি, আমরা ধর্মের নামে কোনো হানাহানিতে বিশ্বাস করি না। অন্য দেশের নাগরিক বাংলাদেশে এসে বসবাস করে, এখানে জঙ্গি ট্রেনিং নিয়ে কোনো ধর্ম বা রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে আক্রমণের জন্য দেশের ভূখণ্ডকে ব্যবহার করতে দেবো না।
রামু-পটিয়ার বৌদ্ধদের ওপর হামলা নতুন অশনি সংকেত উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যারা অসাম্প্রদায়িক চেতনায় বিশ্বাস করে না, যারা আবার দেশে পাকিস্তানের দ্বিজাতিতত্ত্বের বীজ বপন করতে চান তারাই রামুতে হামলা চালিয়েছে। তারা সমৃদ্ধ, শান্তিপূর্ণ বাংলাদেশ চায় না, তারা সাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বানাতে চায়।
তিনি বলেন, আমরা বক্তৃতা দেয়ার জন্য বক্তৃতা দেই না। রাষ্ট্রও পরিচালনা করি। আমাদের কথা ও কাজের মধ্যে কোনো বিভেদ নেই।
এর আগে তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু মঙ্গল প্রদীপ জ্বালিয়ে অনুষ্ঠান উদ্বোধন করেন। স্বাগত বক্তব্যে বৌদ্ধ সম্প্রদায়ের উদ্দেশে তিনি বলেন, রামুর ঘটনা প্রমাণ করে গুজবে কান দিতে নেই। গুজবে কান দিলে বড় ধরনের ক্ষতির সম্মুখীন হতে হয়।
বৌদ্ধদের ধর্মগুরু ড. ধর্মসেন মহাথেরোর সভাপতিত্বে আরও বক্তব্য রাখেন স্থানীয় সংসদ সদস্য এ কে এম রহমতউল্লাহ, বাংলাদেশ বুদ্ধিস্ট ফেডারেশন সভাপতি বিশ্বপতি বড়ুয়া, সাধারণ সম্পাদক অশোক বড়ুয়া প্রমুখ।