বারুখ স্পিনোজা

২৩ নভেম্বর ২০১২, ১২:০২ অপরাহ্ন

ওলন্দাজ দার্শনিক বারুখ স্পিনোজা ১৬৩২ খ্রিস্টাব্দের ২৪ নভেম্বর নেদারল্যান্ডসের আমস্টার্ডামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ইহুদি বংশোদ্ভূত। আধুনিক যুগের শুরুর অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ও সম্ভবত সবচেয়ে মৌলিক দার্শনিক তিনি। নির্জনতাপ্রিয় এই দার্শনিক মুক্ত ও স্বাধীন চিন্তার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন এবং একই সঙ্গে কর্ম, আচরণের ক্ষেত্রে নিজেকে নির্ভীক, নীতিনিষ্ঠ, নিষ্কলঙ্ক মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। তার মতে, জীব জগতের সঙ্গে নিবিড় সম্পর্ক স্থাপন করে পৃথিবীতে শান্তি ও সুখ প্রতিষ্ঠা করার জন্য মানুষের যা করা দরকার তার স্বরূপ অনুসন্ধান করাই দার্শনিকের মূল লক্ষ্য। হিব্রুতে লেখা বাইবেলের সত্যতা এবং দৈব প্রকৃতি নিয়ে তার মধ্যে বিতর্কিত ধারণা জন্মেছিল। এজন্য ইহুদি ধর্মীয় কর্তৃপক্ষ তার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। ২৩ বছর বয়সে ইহুদি সম্প্রদায়ে তিনি নিষিদ্ধ ঘোষিত হন। পরে তার প্রকাশনাগুলো ক্যাথলিক চার্চের নিষিদ্ধ গ্রন্থের সূচিতে স্থান পায়। স্পিনোজার বাবা মিগুয়েল একজন সফল ব্যবসায়ী ছিলেন। স্কুলের গণ্ডিবদ্ধ পড়াশোনার পাশাপাশি স্পিনোজা বিভিন্ন বিষয়ে পড়াশোনা করতেন। তার পারিবারিক ভাষা ছিল স্পেনিশ। প্রাকৃতিক বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ে তার গভীর জ্ঞান ছিল।
ইহুদি সম্প্রদায় থেকে বহিষ্কৃত হয়ে নিঃসঙ্গ জীবনযাপন করতে থাকেন স্পিনোজা। এ সময় তার পেশা ছিল চশমার কাচ পরিষ্কার করা। ১৬৬০ সালে স্পিনোজার নাম প্রথম ছড়িয়ে পড়ে কয়েকটি বিখ্যাত গ্রন্থের জন্য। তার প্রথম প্রকাশনা ছিল ট্র্যাক্টাটাস ডি ইন্টেলেকটাস এমেনডেশন। তার অপর দুটি বিখ্যাত গ্রন্থ হলো ট্র্যাক্টাটাস থিও লোডিকো-পলিটিকাস এবং ট্র্যাক্টাটাস পলিটিকাস। ১৬৭৪ সালে ফ্রান্সের সম্রাট চতুর্দশ লুইয়ের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অভিযোগে তাকে প্রাণদণ্ড দেয়া হয়। অবশ্য এ দণ্ড কার্যকর হয়নি। ১৬৭৭ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি নেদারল্যান্ডসের হেগে নিজ বাসভবনে পরলোকগমন করেন তিনি। মৃত্যুর পর অসংখ্য চিঠিপত্র এবং কিছু অপ্রকাশিত রচনাবলীর বিখ্যাত এথিক্স গ্রন্থটি তার কক্ষে পাওয়া যায়। — ইমরান রহমান

ফিরে দেখা এর আরও সংবাদ

সাপ্তাহিকী


উপরে

X