Amardesh
আজঃঢাকা, মঙ্গলবার ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১২, ২ ফাল্গুন ১৪১৮, ২১ রবিউল আউয়াল ১৪৩৩ হিজরী    আপডেট সময়ঃ রাত ১.০০টা
 
 সাধারণ বিভাগ
 বিশেষ কর্ণার
 শোক ও মৃত্যুবার্ষিকী
 সাপ্তাহিকী
 
আবহাওয়া
 
 
আর্কাইভ: --
 

ময়মনসিংহে মা নারায়ণগঞ্জে শ্বাসরোধে গার্মেন্ট কর্মী খুন : দুটি ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

ডেস্ক রিপোর্ট
« আগের সংবাদ
পরের সংবাদ»
ময়মনসিংহ শহরে ছেলের লাঠির আঘাতে খুন হয়েছে মা এবং বহুতল ভবন থেকে উদ্ধার করা হয়েছে এক ব্যক্তির লাশ। নারায়ণগঞ্জে শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে গার্মেন্ট কর্মীকে। শিবচরে বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। আমাদের প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর :
ময়মনিসংহে মা খুন : ময়মনিসংহ শহরে গতকাল বিকালে ছেলের লাঠির আঘাতে বৃদ্ধা মা খুন হয়েছেন। শহরের সেহরা ডিবি রোড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।
পুলিশ ও এলাকাবাসী জানায়, ময়মনিসংহ শহরের ৭৫/সি-১ ডিবি রোডে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত সহযোগী অধ্যাপক ড. মো. আজিজুল হকের ছেলে আবু বকর সিদ্দিক গতকাল বিকালে বাসায় টাকা দেয়া না দেয়া নিয়ে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে তার মা নূরুন্নাহার বেগমকে (৭০) লাঠি দিয়ে মাথায় আঘাত করে। এতে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে তাকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানেই তিনি মারা যান। এ ঘটনার পর ছেলে আবু বকর সিদ্দিক পলাতক রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে নিহত বৃদ্ধার লাশ উদ্ধার করেছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় মামলা হয়নি।
এদিকে ময়মনসিংহ শহরের মেছুয়া বাজার এলাকার সূচনা ডেভেলপমেন্ট লিমিটিডের নির্মাণাধীন একটি বহুতল ভবনের চারতলা থেকে আ. সালাম (৫৫) নামের এক ব্যক্তির মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। ওই ব্যক্তি নির্মাণাধীন ভবনের লেবার কন্ট্রাক্টর বলে জানা গেছে। তার বাড়ি টাঙ্গাইলের গোপালপুর উপজেলার শিমলাপাড়া গ্রামে।
পুলিশ জানায়, শহরের মেছুয়াবাজার এলাকার ডেভেলপমেন্ট লিমিটেডের একটি নির্মাণাধীন ভবনের চারতলা থেকে গতকাল ভোরে লেবার কন্ট্রাক্টর আ. সালামের মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়। বিল্ডিংয়ের ছাদের রডের সঙ্গে ফাঁস লাগানো ঝুলন্ত অবস্থায় তার মৃতদেহ পাওয়া যায়। ময়নাতদন্তের জন্য মৃতদেহ মর্গে পাঠানো হয়েছে।
নিহতের শ্যালক জানান, মালিকপক্ষের কাছে বিপুল পরিমাণ টাকা পাওনা ছিল। এছাড়া শ্রমিকদের বকেয়া টাকা না দিতে পারায় বেশকিছু দিন ধরে তিনি মানসিক অশান্তিতে ভুগছিলেন। ময়মনসিংহ কোতোয়ালি মডেল থানার এসআই শওকত জানান, ঘটনার তদন্ত চলছে। ময়নাতদন্ত শেষে এটি হত্যা না আত্মহত্যা, জানা যাবে। এ ব্যাপারে এখনও মামলা হয়নি।
না.গঞ্জে শ্বাসরোধে গার্মেন্ট কর্মী খুন : নারায়ণগঞ্জে শ্বাসরোধে খুন হয়েছে শাকিল (২৬) নামে এক গার্মেন্ট কর্মী। গতকাল সকালে ফতুল্লার কাশীপুর হাজীপাড়া মাদরাসার পাশের একটি পুকুর থেকে তার লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। ফতুল্লা মডেল থানার ওসি (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, এলাকাবাসী সকাল ৯টায় হাজীপাড়া মাদরসার পাশের একটি পুকুরে লাশটি দেখে থানায় খবর দেয়। পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নারায়ণগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠায়। মৃত্যুর কারণ সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত হতে পারেনি পুলিশ।
শাকিল ফতুল্লার পঞ্চবটী এলাকায় অবস্থিত ‘ইনোভেটিক গার্মেন্টসের’ সুইং হেলপার। রোববার দুপুরের খাবার খেয়ে কাজে যায় শাকিল। এর পর থেকে সে নিখোঁজ থাকে। নিহতের গলায় আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা তাকে শ্বাসরোধ করে হত্যার পর লাশ পুকুরে ফেলে রেখে যায়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। শাকিল ময়মনসিংহের ত্রিশাল কোনাবাড়ী এলাকার আবদুুল মতিনের ছেলে।
শিবচরে এক বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার : গতকাল সকালে মাদারীপুর জেলার শিবচর উপজেলার মাদবরচর ইউনিয়নে ৬৫ বছরের এক বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। তাকে হত্যা করে গাছের সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে বলে নিহতের পরিবারের দাবি। ঘটনাটি রহস্যজনক। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে জানা যাবে এটি হত্যা না আত্মহত্যা বলে জানিয়েছে পুলিশ। এ ব্যাপারের নিহতের ছেলে বাদী হয়ে শিবচর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ করেছে।
এলাকাবাসী ও পারিবারিক সূত্র জানা যায়, গত রোববার রাতে শিবচর উপজেলার মাদবরচর ইউনিয়নের বাখরেরকান্দি গ্রামের মৃত ছৈইজউদ্দিন শেখের ছেলে মো. আদেলউদ্দিন শেখ (৬৫) মাদবরচর ইউনিয়ন পরিষদ মাঠে ওয়াজ মাহফিলে যায়। রাতে ওয়াজ মাহফিল শেষ হয়ে গেলেও মো. আদেলউদ্দিন শেখ বাড়ি ফিরে না আসায় পরিবারের সদস্যরা তাকে খুঁজতে বের হয়। সারারাত খুঁজেও বৃদ্ধ মো. আদেলউদ্দিন শেখকে পাওয়া যায়নি। গতকাল সকালে নিহতের স্ত্রী মজিদন নেছা বাড়ির পাশে গাছের সঙ্গে বৃদ্ধের ঝুলন্ত লাশ দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেয়। খবর পেয়ে সহকারী পুলিশ সুপার রাসেল শেখ ও সহকারী পুলিশ সুপার মো. কবির আহম্মেদ (শিক্ষানবিস), শিবচর থানার পুলিশ পরিদর্শক আবদুর রাজ্জাক পিপিএম ও এসআই উত্পল বিশ্বাস লাশ উদ্ধার করে মাদারীপুর মর্গে পাঠায়। নিহতের স্ত্রী মজিদন নেছা বলেন, রোববার রাতে এশার নামাজের আগে বাড়ি থেকে ওয়াজ শুনতে যান। রাতে ১০টার সময় আবার খেতে বাড়িতে আসেন। পরে ওয়াজ শুনতে গিয়ে আর ফিরে আসেননি।
নিহতের ছেলে জয়নাল শেখ জানান, বাবার সঙ্গে তার পরিবারের কোনো ভুল বোঝাবুঝি ছিল না। তিনি দৈনিক পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ পড়তেন। তিনি আত্মহত্যা করতে পারেন না। তাকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রাখা হয়েছে। তিনি আরও বলেন, তার চাচা মো. নোয়াবালী শেখ ও চাচাতো ভাইদের সঙ্গে তাদের ১৫ বছর ধরে জমি সংক্রান্ত বিরোধ চলছে। এ কারণে তার বাবাকে হত্যা করা হতে পারে বলে তিনি দাবি করেন।
তদন্তকারী কর্মকর্তা শিবচর থানার এসআই উত্পল বিশ্বাস বলেন, ব্যাপারটি রহস্যজনক। লাশের ময়নাতদন্ত রিপোর্ট পেলে জানা যাবে, এটি হত্যা না আত্মহত্যা।
শিবচর থানার ওসি আ. রাজ্জাক পিপিএম বলেন, নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। এ ব্যাপারে তদন্ত চলছে।